বৃথা গেল ধাওয়ানের লড়াই৷

নিউজিল্যান্ড ৫০৩, ১০৫

ভারত ২০২ এবং ৩৬৬ (৯৬.৩ ওভার)

৪০ রানে প্রথম টেস্ট জয়ী নিউজিল্যান্ড৷

অকল্যান্ড: এ যেন তীরে এসে তরী ডোবা৷  নিউজিল্যান্ড সফরে প্রথমবার জয়ের স্বাদ পেতে চলেছিল ভারতীয় দল৷ অকল্যান্ড টেস্ট জিতে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে যেতে পারত মহেন্দ্র সিং ধোনিরা৷ কিন্তু আশা জাগিয়েও উতরাতে পারল না টিম ইন্ডিয়া৷ প্রথম টেস্টে ৪০ রানে হেরে গেল ধোনি ব্রিগেড৷ বৃথা গেল শিখর ধাওয়ান (১১৫), বিরাট কোহলি (৬৭), ধোনির(৩৯) লড়াই৷ জ্বলে উঠলেন কিউই পেসার নেল ওয়াগনার৷ ৬২ রানে ৪ উইকেট নিলেন তিনি৷ ধাওয়ান, কোহলি, ধোনি, জাহির খানকে ফিরিয়ে দিয়েছেন এই কিউই পেসারটি৷ ৩২০ রানের জয়ের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে ব্যাট করতে নেমে ৯৬.৩ ওভারে ৩৬৬ রানেই থেমে যায় ভারতীয়দের ইনিংস৷ দুই টেস্টের সিরিজে ১-০ ব্যবধানে পিছিয়ে পড়ল ধোনিরা৷ ম্যান অফ দ্য ম্যাচ নির্বাচিত হয়েছেন নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক ব্রেন্ডন ম্যাককালাম৷

অকল্যান্ড টেস্টে জয়ের জন্য দরকার ছিল ৩২০ রান৷ হাতে ছিল ৯টি উইকেট এবং দু’ দিন৷ তবুও নিজেদের মেলে ধরতে পারল না ‘মেন ইন ব্লু’রা৷ রবিবার চতুর্থ দিনের সকালে এক উইকেটে ৮৭ রান নিয়ে ব্যাট করতে নামে ভারতীয় দল৷ আগের দিন শিখর ধাওয়ান (৪৯) এবং চেতেশ্বর পূজারা (২২) রানে অপরাজিত ছিলেন৷ গোটা সিরিজে ব্যর্থ হয়েছেন ধাওয়ান৷ কিন্তু এদিন দুর্দান্ত ব্যাটিং করেন তিনি৷ নিউজিল্যান্ড সফরে প্রথম শতরানও করে নেন৷ ১১৫ রান করার ফাঁকে ১২ চার এবং একটি ছক্কা মারেন৷ দিনের শুরুতেই পূজারা (২৩)  আউট হন৷ এরপর শিখর ধাওয়ান এবং কোহলি ভারতীয় ইনিংস টানতে থাকেন৷ দু’জনে মিলে ১২৬ রান যোগ করেন৷ কিন্ত ভাল শুরু করেনও ফিরে যান কোহলি৷ এরপর ধাওয়ানকে ফিরিয়ে দিয়ে বড় ধাক্কা দেন ওয়াগনার৷ এই সফরে নিজেকে ভালই প্রমাণ করেছেন অজিনকা রাহানে৷ কিন্তু তিনিও এদিন (১৮) ব্যর্থ হয়েছেন৷ ২৭০ রানে ছ’উইকেট পড়লেও লড়াই থেকে পিছিয়ে আসেনি ভারত৷ অধিনায়ক ধোনি প্রথমে রবীন্দ্র জাদেজা ও পরে জাহির খানকে সঙ্গে নিয়ে লড়াই চালিয়ে যেতে থাকেন৷ এর সময় মনে হয়েছিল ভারতের জয় শুধু সময়ের অপেক্ষা৷ কিন্তু জাদেজা (২৬) জাহির( ১৭) আউট হওয়ার পরে হারের ছবি স্পষ্ট হয়ে উঠে ভারতীয় শিবিরে৷ আউট হয়ে যান ভারত অধিনায়কও৷ শেষ উইকেটে ইশান্ত শর্মা এবং মহম্মদ শামিদের কিছু করার ছিল না৷ শেষ হাসি নিউজিল্যান্ডই৷

----
--