নয়াদিল্লি: দেশে যত সরকার গঠিত হয়েছে, যতজন প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন, প্রত্যেকের সহযোগিতায় দেশ এগিয়েছে। কেউ বলতে পারবে না, পূর্বতন সরকার কিছু করেনি। শুক্রবার লোকসভায় সংবিধান বিতর্ক জবাবি ভাষণে এমনই মন্তব্য করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। পাশাপাশি দেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরুরও ভূয়সী প্রশংসা করে তিনি বলেন, “জওহরলাল নেহরু ছিলেন প্রকৃত দেশনায়ক৷ একতাই গণতন্ত্রের সবচেয়ে বড় শক্তি এবং পরস্পর সহযোগিতাই গণতান্ত্রিক ক্ষমতা প্রদান করে। সংখ্যাগরিষ্ঠ বা সংখ্যালঘিষ্ঠ ভোটে নয়। সহমতের ভিত্তিতেই সরকার চলে।’’

রাজা বা শাসকের দ্বারা এই দেশ তৈরি হয়নি। কোটি কোটি কৃষক, শিক্ষক, দরিদ্র মানুষ এবং সাধারণ নাগরিকের দ্বারাই এই দেশ তৈরি হয়েছে বলেও এদিন মন্তব্য করেন নরেন্দ্র মোদী। আবার সংবিধানের মূল প্রণেতা বি আর আম্বেদকরের প্রসঙ্গ তুলে নরেন্দ্র মোদী বলেন, আম্বেদকর প্রকৃত মহাপুরুষের উদাহরণ। ওঁর দূরদৃষ্টি ছিল অসাধারণ। আম্বেদকর সমাজে অত্যাচারের শিকার হয়েছেন, কিন্তু দেশের খসড়া প্রণয়নের সময় তিনি প্রতিহিংসাপরায়ণ হননি।

এদিন কেবল একতার কথা বলেই থেমে যাননি প্রধানমন্ত্রী। সকলকে সংবিধানের পবিত্রতা রক্ষা করার দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, “বৈচিত্র্যের মধ্যে ঐক্যের দেশ হল ভারত এবং দেশের সমস্ত নাগরিককে একসঙ্গে ধরে রাখার ক্ষমতা রাখে সংবিধান। তাই সংবিধান নিয়ে বিতর্ক, চিন্তা প্রয়োজন। সংবিধানের পবিত্রতা রক্ষা করা সকলের দায়িত্ব।’’ বর্তমান সরকার সংবিধান পরিবর্তনের চেষ্টা করছে বলে বিরোধীরা যে অভিযোগ তুলেছে, তার জবাব দিয়ে নরেন্দ্র মোদী বলেন, “কেউ সংবিধান পরিবর্তনের কথা ভাবছে না। যদি কেউ এ রকম ভাবে তাহলে তা আত্মহত্যার শামিল।’’ সংবিধান নিয়ে সকলের চিন্তা-ভাবনা এবং বিতর্ক করার সুযোগ রয়েছে বলে জানান তিনি। সকলকে সংবিধান নিয়ে মতামত প্রকাশের সুযোগ করে দিতে ‘অনলাইন বিতর্ক চালুক করার কথাও ভাবা হচ্ছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

সামগ্রিকভাবে এদিন লোকসভায় জবাবি ভাষণে নরেন্দ্র মোদীকে ‘একতা’র প্রতীক হিসেবে দেখা যায়। যদিও তা জিএসটি বিল পাশ করানোর কৌশল বলে তোপ দাগেন পশ্চিমবঙ্গের সিপিএম সাংসদ মহম্মদ সেলিম। তাঁর কথায়, “বিরোধীদের চাপের মুখে নরম হয়েছেন মোদী। বিজেপির অহং বোধ ভেঙেছে। গা-জোয়ারি করে কিছু হবে না, এটা নরেন্দ্র মোদী বুঝেছেন।’’ পশ্চিমবঙ্গের প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি তথা সাংসদ অধীর চৌধুরী বলেন, “বিজেপি তথা প্রধানমন্ত্রীর মানসিকতার বদল ঘটেছে।’’ “প্রধানমন্ত্রীর কথায় এবং কাজে যেন মিল থাকে” বলে মন্তব্য করেছেন সিপিএমের সাধারণ সম্পাদক তথা রাজ্যসভার সিপিএম সাংসদ সীতারাম ইয়েচুরি।

 

--
----
--