ঢাকা: বাংলাদেশের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলির বিরুদ্ধে টাকার বিনিময়ে সার্টিফিকেট দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে৷বর্তমানে বাংলাদেশে মোট ৭৯টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে৷ ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ বা টিআইবি নিয়ন্ত্রণাধীন ২২টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় একটি রিপোর্ট পেশ করে৷তাতেই উঠে আসে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে দুর্নীতির নানা চিত্র৷টিআইবি-র রিপোর্টে বলা হয়, ৫০ হাজার থেকে তিন লাখ টাকার বিনিময়ে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে উচ্চশিক্ষার সার্টিফিকেট কিনছে বাংলাদেশের পড়ুয়ারা৷ শুধু তাই নয়, পাস করিয়ে দেওয়া এবং নম্বর বাড়িয়ে দেওয়ার জন্য শিক্ষার্থীরা ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে উপহার ছাড়াও নগদ অর্থের নিচ্ছেন৷
টিআইবি-র প্রতিবেদন অনুযায়ী উপাচার্য, সহ উপাচার্য ও কোষাধ্যক্ষ নিয়োগে অনুমোদনের জন্য ৫০ হাজার থেকে দু লক্ষ টাকা, বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের পরিদর্শন বাবদ ৫০ হাজার থেকে এক লক্ষ টাকা, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ নিষ্পত্তির জন্য ১০ থেকে ৫০ হাজার টাকা, বিভাগ অনুমোদনের জন্য ১০ থেকে ২০ হাজার, পাঠ্যক্রম অনুমোদন ও দ্রুত অনুমোদনের জন্য ৫ থেকে ১০ হাজার টাকা লেনদেন হয় এবং নিরীক্ষা করানোর জন্য ৫০ হাজার থেকে এক লক্ষ টাকা লেনদেনেরও ঘটনা ঘটছে বাংলাদেশের এই বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে৷তবে প্রতিবেদনে কোনও বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম উল্লেখ করা হয়নি৷
বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক  একে আজাদ চৌধুরী এ বিষয়ে বলেন, টিআইবির তথ্য এবং অভিযোগ সুনির্দিষ্ট নয়৷ তারা কোনও বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম উল্লেখ করেনি৷যদি তারা সুনির্দিষ্ট অভিযোগ দেয়, তাহলে তদন্ত করে অভিযুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়গুলির বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছে তিনি৷

 

Advertisement

————————————————————————————————————————

----
--