হাওড়ায় পঞ্চায়েত ভোটের আগে বড় ভাঙন তৃণমূলে

হাওড়া: পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে বড়সড় ভাঙন রাজ্যের শাসক শিবিরে। হাওড়া জেলায় তৃণমূল কংগ্রেসের প্রায় ১৭০০ জন কর্মী-সমর্থক যোগ দিল বিজেপিতে। রবিবার দলের নবাগত সদস্যদের হাতে পতাকা তুলে দেন পদ্ম শিবিরের কেন্দ্রীয় নেতা কৈলাশ বিজয়বর্গীয়।

ওই দিন হাওড়া জেলার বাগনান স্টেশন সংলগ্ন এলাকায় বিশাল পদযাত্রা করে বিজেপি। সেই পদযাত্রায় পা মেলান কেন্দ্রীয় নেতা কৈলাশ বিজয়বর্গীয়, রাজ্য সম্পাদিকা দেবশ্রী চৌধুরী, হাওড়া গ্রামীণ সাংগঠনিক জেলা সভাপতি অনুপম মল্লিক সহ আরও অনেকে। পদযাত্রার শেষে একটি সভায় তৃণমূল ছেড়ে বিপুল সংখ্যক কর্মী বিজেপি শিবিরে আনুষ্ঠানিকভাবে যোগ দিয়েছেন।

- Advertisement -

ওই জনসভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে তীব্র ভাষায় রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসকে এবং দলনেত্রী মমতাকে আক্রমণ করেন কৈলাশ বিজয়বর্গীয়। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেছেন, “দিদি যে থালায় খায়, সেই থালায় ছিদ্র করেন। মমতা আগে কংগ্রেসে ছিল, সেই কংগ্রেস ভেঙে নিজের দল করেছেন। একদা ছায়া সঙ্গী মুকুল রায়কে নানাভাবে হেনস্থা করছে মমতার প্রশাসন।”

এই বিষয়ে তিনি টেনে এনেছেন ঝাড়গ্রামের পুলিশ সুপার ভারতী ঘোষের প্রসঙ্গ। কৈলাশবাবুর মতে, “পুলিশ সুপার ভারতী ঘোষ এক সময় তিনি মমতাকে মা বলে ডাকতেন। আজ বাংলার পুলিশ ভারতী ঘোষের পিছনে পড়ে আছে রাজ্য। ভারতী ঘোষ যেদিন রাজ্যে আসবে দিদির পোল খুলে দেবে, মাওবাদী নেতা কিষেনজির হত্যা হোক আরও কিছু ভারতী ঘোষকে দিয়ে করিয়েছেন মমতা দিদি।” তৃণমূল নেত্রীকে আক্রমণ করে তিনি বলেছেন, “মমতা নিজের আর ভাইপো ছাড়া আর কারোর কথা ভাবে না।”

পিছিয়ে পরা বাংলাকে উদ্ধার করতে রাজ্যের মসনদে বিজেপির যাওয়া একান্তই প্রয়োজন বলে দাবি করেছেন কৈলাশ। তাঁর কথায়, “আমরা বাংলাকে বাঁচাব, আমার হিংসার জবাব হিংসায় দেব না। আমারা যেদিন হিংসা করব ভারতে কোথাও যেতে পারবে না তৃণমূল। মমতা মাত্র একটি প্রদেশে ক্ষমতায়, আমরা কাশ্মীর থেকে কন্যাকুমারী সব জায়গাতে ক্ষমতায়। আমারা ছোট খাটো নেতাদের হামলা করব না। চ্যালেঞ্জ করছি আপনাকে আপনি ভারতে কোথাও যেতে পারবেন না।”

Advertisement ---
---
-----