নয়াদিল্লি: ডোপ টেস্টে ব্যর্থ অনূর্ধ্ব-১৭ এর ১২ জন ভারতীয় অ্যাথলিট৷ চলতি বছরে খেলো ইন্ডিয়া স্কুল গেমসের প্রথম মরশুমে সোনা জয়ী একাধিক অনূর্ধ্ব ১৭ অ্যাথলিট নাডার ডোপ টেস্ট পরীক্ষায় ফেল করেছে৷

জানুয়ারির ৩১ থেকে ৮ ফেব্রুয়ারি খেলো ইন্ডিয়া টুর্নামেন্টে আয়োজিত হয়েছিল৷ সেই টুর্নামেন্টের সফল ১২ অ্যাথলিটের নাম জড়াল ডোপিংয়ে৷ এদের মধ্যে রয়েছে চার জন কুস্তিগীর, তিনজন বক্সার, দুইজন জিমন্যস্ট ও জুডো, ভলিবল ও অ্যাথলিট থেকে একজন করে প্রতিনিধি৷

Advertisement

১২ জনের মধ্যে পাঁচজন টুর্নামেন্ট থেকে সোনা জিতেছিল৷ কুস্তিতে তিনটে, ভলিবল ও জিমন্যাস্টিক্স বিভাগে একটি করে সোনার পদক জিতেছিলেন অ্যাথলিটরা৷ ডোপ টেস্টের সঙ্গে জড়িত বিশেষ সূত্র থেকে জানানো হয়েছে, ‘বেশিরভাগ অ্যাথলিটের ডোপ টেস্টের রিপোর্ট পজেটিভ এসেছে৷ যেহেতু বিষয়টি বিশ্ব ডোপিং বিরোধী সংস্থার অন্তর্গত তাই এখনো অ্যাথলিটদের বরখাস্ত করা হয়নি৷’

টারবুটালিন একধরনের নিসিদ্ধ ড্রাগ যা শ্বাসকষ্ট হয় এমন রুগীদের জন্য ব্যবহার করা হয়৷ এই নিসিদ্ধ ড্রাগ ব্যবহার করে অ্যাথলিটদের পারফরম্যান্সকে বাড়ানো যায়৷ ফিউরোসেমাইড হল আরেক ধরনের ড্রাগ যা দ্রুত ওজন কমাতে সাহায্য করে৷ মনে করা হচ্ছে এই ড্রাগগুলিই ব্যবহার করেছিলেন অ্যাথলিটরা৷ এছাড়াও একজন বক্সারকে প্রাথমিকভাবে নির্বাসন দেওয়া হয়েছে কারন তার শরীরে মিলেছিল পারফরম্যান্স বৃদ্ধিকারী স্ট্যানোজোলো৷

এই টেস্টের ফলে বোঝা গেল ভারতে জুনিয়র লেভেল অ্যাথলেটিক্সে অতিমাত্রায় ডোপিংয়ের ব্যবহার হয়৷ ওয়াডার তথ্য অনুসারে ডোপিংয়ে ভারত বিশ্বের তৃতীয় দেশ৷ সম্প্রতি ভারতে ক্রীড়ার মান বাড়ানোর জন্য প্রধানমন্ত্রী ‘খেলো ইন্ডিয়া প্রোজেক্ট’ শুরু করেছেন৷ যেখানে বিশেষ যোগ্যতা সম্পন্ন ১০০০ জন অ্যাথলিটকে ৮ বছর ধরে বার্ষিক ৫ লক্ষ টাকা আর্থিক সহায়তার কথা ঘোষনা করেছে কেন্দ্রীয় ক্রীড়া মন্ত্রক৷ ন্যাশনাল স্কুল গেমস এই ‘খেলো ইন্ডিয়া প্রজেক্টের’ই অন্তর্গত৷

----
--