বিপ্লব! পাকিস্তানে ভোটে লড়ছেন ১৩ রূপান্তরকামী

ইসলামাবাদ: পাকিস্তানে রূপান্তরকামীদের বিপ্লব শিক্ষনীয়৷ ২০১৬ সাল থেকে দেশটার বুকে যেন বাঘের আঁচড় কেটেছে ওরা৷ গাড়ির লাইসেন্সের অধিকার পেতে এক মাস আগেই লড়েছিলেন রূপান্তরকামীরা৷ সরকার বাধ্য হয় গাড়ির লাইসেন্স দিতে৷ এবার সোজা ভোট দাঁড়াতে চলেছেন পাকিস্তানের ১৩ রূপান্তরকামী৷

২৫ জুলাই পাকিস্তানের বেশ কয়েকটি রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন৷ সেই ভোটেই দাঁড়াচ্ছেন ১৩ রূপান্তরাকমী৷ লিখিত ভাবে তা ঘোষণাও করেছে অল পাকিস্তান ট্রান্সজেন্ডার ইলেকশন নেটওয়ার্ক বা এপিটিইএন৷ এর মধ্যে ওকারা ও ঝিলম বিধানসভা কেন্দ্রের থেকে লড়ছেন রূপান্তরকামী নায়েব আলি ও লুবনা লাল৷ পাকিস্তানের তেহরিক-ই-ইনসাফ গুলালাইয়ের দলের হয়ে ভোটে লড়বেন তারা৷ বাকি ১১ জনই নির্দল প্রার্থী হিসেবে ভোটে লড়বেন৷

পাকিস্তানের বেশ কয়েকটি রূপান্তরকামী সংগঠন থেকে প্রার্থী নির্বাচন করেছে এপিটিইএন৷ ট্রান্সঅ্যাকশন কেপি,দ্য সিন্ধ ট্রান্সজেন্ডার ওয়েলফেয়ার নেটওয়ার্কের মত সংগঠন থেকে প্রার্থী বাছাই করেছে এপিটিইএন৷ অবশ্য, এর মধ্যেও অপ্রীতিকর ঘটনাও ঘটে চলেছে৷ ডানপন্থী রূপান্তরকামী নেতা ফয়জান জানের ২ সদস্যকে বেধড়ক মারধর করা হয়েছে৷ ২ রূপান্তরকামী ভোটে দাঁড়াচ্ছে জানতে পেরে তাদের উপর হামলা চালানো হয়৷ এর ফলে মনোনয়নপত্র জমা দিতে পারেননি ওই দুই প্রার্থী৷ বাধ্য হয়েই তাই নির্দল প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন জমা দেন৷

- Advertisement -

গত ২-৩ বছর পাকিস্তানে নিজেদের অধিকার কায়েম রাখতে সফল রূপান্তরকামীরা৷ ফ্যাশন ডিজাইন থেকে রাজনীতি, সামাজিক কার্যকলাপ বা অধ্যাপনা সব খাতেই নজির গড়েছেন তাঁরা৷ ৩- ৪ বছরের আগের চিত্রটা এতটাও মধূর ছিল না৷ রাস্তাঘাটে নিজেদের অধিকার কায়েম রাখতে বেধড়র মারধরও খেয়েছেন রূপান্তরকামীরা৷ এমনকি অনেককেই খুন করাও হয়েছে৷

সব প্রতিকূলতা কাটিয়ে পাকিস্তানে রূপান্তরকামীরা নিজেদের জায়গা করে নিয়েছে তবে,গুপ্তহত্যা চললেও রূপান্তরকামীদের নিয়ে পাক সরকার উদারতার পরিচয় দিয়েছে৷ পাকিস্তানই বিশ্বের প্রথম দেশ যেখানে রূপান্তরকামীদের তৃতীয় লিঙ্গের স্বীকৃতি দেওয়া হয়৷ ২০০৯ সালে পাকিস্তানে তৃতীয় লিঙ্গের স্বীকৃতি পান রূপান্তরকামীরা৷ তবে, রূপান্তরকামীদের সমাজ এগোতে বাধা দেয়৷ সেই বাধা পেরিয়ে আজ ১৩ রূপান্তরকামী ভোট প্রার্থী৷ পাকিস্তানে যা নতুন ইতিহাস সৃষ্টি করল৷

Advertisement ---
---
-----