নাশকতার ছক বানচাল! কলকাতা পুলিশের জালে বাংলাদেশী জঙ্গি

ফাইল ছবি

নয়ডা: উত্তরপ্রদেশের নয়ডা থেকে দুই বাংলাদেশী জামাত জঙ্গিকে গ্রেফতার করল পুলিশ৷ মঙ্গলবার সকালে এদের গ্রেফতার করা হয়৷ মুশারফ হোসেন ও রুবেল আহমেদ নামে ওই দুই ব্যক্তি বাংলাদেশী জঙ্গি বলে জানা গিয়েছে৷ নয়ডায় এরা পরিচয় গোপন করে লুকিয়ে ছিল৷ কলকাতা পুলিশ ও উত্তর প্রদেশ পুলিশের সন্ত্রাস দমন শাখার আধিকারিকরা যৌথ তল্লাশিতে এই গ্রেফতারি অভিযান চালায়৷

পুলিশ আধিকারিকদের প্রাথমিক অনুমান এই দুই ব্যক্তি বড়সড় কোনও নাশকতার ছক কষছিল৷ সেই পরিকল্পনা আপাতত বানচাল করে দিয়েছে পুলিশের যৌথ টিম৷ নয়াদিল্লিতে এদের হামলা চালানোর ছক ছিল বলে জানা গিয়েছে৷

ইতিমধ্যেই এই ঘটনায় দিল্লি জুড়ে কড়া নিরাপত্তা জারি করা হয়েছে৷ স্বাধীনতা দিবসের আগে এমনিতেই দিল্লি জুড়ে নিরাপত্তার কড়াকড়ি করা থাকে৷ এবার জঙ্গি গ্রেফতার হওয়ার ঘটনায় আরও নজরদারি বাড়ানো হয়েছে৷

গোয়েন্দা সূত্রের খবর স্বাধীনতা দিবসের আগে, পাকিস্তান মদতপুষ্ট জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মহম্মদ হামলা চালানোর পরিকল্পনা করছে৷ তার সাথে এই দুই জঙ্গির কোনও যোগ রয়েছে কিনা, তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ৷ ২০১৬ সালে এনআইএর-এর হাতে গ্রেফতার হওয়া জইশের তিন জঙ্গি, সইদ মুনীর উল হাসান কাদরি, আশিক বাবা ও তারিখ আহমেদ দারকে জিজ্ঞাসাবাদ করে এই পরিকল্পনার কথা জানতে পারে পুলিশ৷

এই তিন জঙ্গি ২০১৬ সালে নাগরোটা সেনা ছাউনিতে হামলা চালানোর ঘটনায় যুক্ত ছিল বলে অভিযোগ৷ ওই হামলায় সাতজন ভারতীয় সেনা জওয়ান শহিদ হন৷

সন্ত্রাস দমন শাখা এদের মারফত জানতে পারে জইশ এবার জঙ্গি হামলা চালানোর পরিকল্পনা করেছে৷ সেই লক্ষ্যে বেশ কয়েকজন প্রশিক্ষিত জঙ্গিকে ভারতে পাঠানোর পরিকল্পনা করা হয়েছে৷ এদের মধ্যে রয়েছে বেশ কয়েকজন কাশ্মীরি যুবক৷ ফলে সতর্ক হয়েছে দিল্লি পুলিশ৷

পুলিশ সূত্র জানিয়েছে, গোটা রাজধানীতে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। বিমানবন্দর, রেল স্টেশন, বাস টার্মিনাল, মেট্রো স্টেশন ও শপিং মলগুলোর মত গুরুত্বপূর্ণ সব স্থানে পুলিশের স্পেশাল অ্যান্ড ট্যাকটিস (সোয়াট) ও হিট টিমের সদস্যদের মোতায়েন করা হয়েছে। দিল্লি পুলিশের বিশেষ শাখা ও গোয়েন্দারা তৎপর রয়েছেন।

----
-----