ভারতের নাগরিত্বের অপেক্ষায় পাকিস্তানি বৃদ্ধা

হায়দরাবাদ: কেটে গেছে ২০ বছর৷ মেলেনি ভারতের নাগরিকত্ব৷ ৭৫ বছরের বৃদ্ধা হাবিব উন্নিসা বেগম এখনও ভারতের নাগরিকত্ব পেতে মরিয়া৷ পাকিস্তানি হয়েও ভারতই তাঁর আসল দেশ৷ এমনই দাবি বৃদ্ধার৷

উন্নিসার দাদা তৌফিক আলি জানাচ্ছেন, ১৯৫৫ সালে হায়দরাবাদে বিয়ে হয় উন্নিসার৷ উন্নিসার স্বামী ও তাঁর দেওর বেআইনি ভাবেই তাঁকে পাকিস্তানে নিয়ে যায়৷ পাকিস্তানে রোজগারের আশায় স্বামীর হাত ধরেন উন্নিসা৷ কিছুদিন বাদেই পাকিস্তানে থাকা প্রায় অসম্ভব হয়ে ওঠে৷ রোজগার তো দূরের কথা পাকিস্তানে দু বেলা খেতেই বেগ পেতে হয় দম্পতিকে৷

৮ মাস পর পাকিস্তান ছাড়ার সিদ্ধান্ত নেয় উন্নিসা ও তাঁর স্বামী৷ আইনি পথেই পাসপোর্ট ও ভিসা করে জলপথে ভারত আসে তাঁরা৷ ১৯৮৭ সালে পাসপোর্ট আপডেটও হয়৷ ভারতীয় নাগরিকত্ব পেতে পাসপোর্ট বাতিল করে পাক হাই কমিশনারকে আবেদন জানায় তারা৷ আবেদন গ্রহণ করে পাকিস্তান৷ উন্নিসা ও তাঁর স্বামীর পাক পাসপোর্ট ও ভিসা বাতিল হয়৷ এরপরই, ভারতীয় নাগরিকত্ব পেতে আবেদন করেন দম্পতি৷ সেই আবেদনের আজও কোনও উত্তর মেলেনি বলে দাবি তৌফিক আলির৷

এর মধ্যেই মৃত্যু হয়েছে উন্নিসার স্বামী ও ১ ছেলের৷ দুই মেয়ে ও দাদা তৌফিকের সঙ্গে থাকেন উন্নিসা৷ ভারতীয় কমিশন উন্নিসাকে দেশে থাকার ছাড়পত্র দিলেও, নাগরিকত্ব দিতে চাইছে না বলে দাবি তৌফিকের৷ প্রশ্ন উঠছে, ভারতে জন্ম উন্নিসার, তাহলে নাগরিকত্ব পেতে এত সমস্যা হচ্ছে কেন? কেনই বা উন্নিসার বিয়ের আগের পরিচয় গুরুত্ব পাচ্ছে না? তৌফিকের আবেদন, ছেলে ও স্বামীকে হারিয়ে অসহায় বৃদ্ধা৷

উন্নিসা নাগরিকত্ব না পেলে তাঁর দুই মেয়েও সমস্যায় পড়বে, তাই বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে দেখুক ভারত সরকার৷ পাশপাশি, ভেজা গলায় উন্নিসা জানান, মাত্র ৮ মাস পাকিস্তানে থেকেছেন তিনি, সেই শাস্তি ২০ বছর ধরে ভোগ করছেন, এবার ভারতীয় হয়ে শেষ বয়সটা কাটাতে চান৷

Advertisement
----
-----