জয়পুর: ভোটের বাজারে জিকা ভাইরাসে কাবু রাজস্থান৷ এখন পশ্চিম থেকে পুবে ও উত্তরে হানা দিয়েছে জিকা৷ ফলে গোটা দেশে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে৷ দিল্লি ও বিহারে জারি করা হয়েছে সতর্কতা৷ বিষয়টি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীরও নজর এড়ায়নি৷ প্রধানমন্ত্রীর অফিস থেকে স্বাস্থ্যমন্ত্রকের কাছে জিকা নিয়ে রিপোর্ট চাওয়া হয়েছে৷

কেন বিষয়টিতে প্রধানমন্ত্রীকে হস্তক্ষেপ করতে হল? কারণ পরিস্থিতি গুরুতর৷ এর আগে, রাজস্থানের জয়পুরে জিকা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার খবর মেলে৷ পরীক্ষার পর সেখানে ২২ জনের শরীরে এই ভাইরাসের অস্তিত্ব পাওয়া যায়৷ যেটাই এখন দিল্লির কপালে চিন্তার ভাঁজ ফেলে দিয়েছে৷ চিন্তার আরও কারণ আছে৷ জানা গিয়েছে আক্রান্তের একজন বিহারের বাসিন্দা৷ ওই ব্যক্তির বাড়ি বিহারের সিয়ানে৷ এবং সম্প্রতি তিনি বাড়ি যান৷

ফলে এখন বিহারেও এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে৷ রাজ্য সরকার ইতিমধ্যে ওই ব্যক্তির পরিবারের সদস্যদের উপর পর্যবেক্ষণ করার নির্দেশ দিয়েছেন৷ তাদের মধ্যে জিকা ভাইরাস সংক্রমণের কোনও লক্ষণ দেখা দিলে তা সঙ্গে সঙ্গে জানানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে৷ পাশাপাশি বিহারের ৩৮টি জেলায় পর্যবেক্ষণ করতে বলা হয়েছে৷

পিএমও থেকে নির্দেশ পাওয়ার পরই স্বাস্থ্যমন্ত্রকের তরফে জানানো হয়, জয়পুরে ন্যাশনাল সেন্টার ফর ডিসিজ কন্ট্রোল (এনসিডিসি) খোলা হয়েছে৷ সেখান থেকে অবস্থার উপর নজর রাখা হচ্ছে৷ এখনও অবধি ২২টি ল্যাবরেটরি পরীক্ষা পজিটিভ৷

ভারতে প্রবেশের আগে জিকা ৮৬টি দেশে হানা দিয়ে এসেছে৷ আর পাঁচটা ভাইরাসঘটিত রোগের মতো জিকা ভাইরাসের রোগের লক্ষণও একই৷ ভারতে প্রথম জিকা প্রবেশ করে ২০১৭ সালে৷ তখন আহমেদাবাদ থেকে খবর আসে জিকার ছড়িয়ে পড়ার৷ ওই বছর তামিলনাড়ুতে এই ভাইরাস হানা দেয়৷ দুটি জায়গাতেই কড়া নজরদারি চালিয়ে ও গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপের মাধ্যমে জিকাকে প্রতিহত করা হয়৷

----
--