পর্তুগিজ কলোনিতে উড়বে ৩০০ ফুটের জাতীয় পতাকা

প্রতীকী ছবি

সৌমেন শীল, চুঁচুড়া: স্বাধীনতা দিবসে জাতীয় পতাকা উত্তোলনে কলকাতাকে টেক্কা দিতে চলেছে ব্যান্ডেল। পর্তুগিজ কলোনি হিসেবে পরিচিত হুগলী জেলার ব্যান্ডেলে উত্তোলন করা হবে ৩০০ ফুটের জাতীয় পতাকা।

বুধবার দেশের ৭২ তম স্বাধীনতা দিবসের দিনে আকড়া ফটক মোড়ে উত্তোলন করা হবে ১০০ ফুটের জাতীয় পতাকা। ডায়মন্ড হারবার কেন্দ্রের সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ওই পতাকা উত্তোলনের উদ্যোগ নিয়েছেন। স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে প্রথমবার কলকাতায় উত্তোলন হতে চলেছে ১০০ ফুটের জাতীয় পতাকা, এমনই দাবি করেছেন অভিষেকবাবু।

আরও পড়ুন- ‘মিনি পাকিস্তানে’ উড়বে ১০০ ফুটের তেরঙ্গা

- Advertisement -

কলকাতার থেকেও তিন গুণ বড় জাতীয় পতাকা উত্তোলিত হতে চলে ব্যান্ডেলে। স্বাধীনতা দিবসের দিন সকাল আটটা নাগাদ ব্যান্ডেলের লিচুবাগান সংলগ্ন জিটি রোডের ধারে উত্তোলন করা হবে ৩০০ ফুটের জাতীয় পতাকা। এই অনুষ্ঠানের উদ্যোক্তা স্বাধীনতা দিবস উদযাপন কমিটি। ২০১৬ সাল থেকে ব্যান্ডেলে এই কমিটির উদ্যোগে বিরাট জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়ে থাকে। জাতি, ধর্ম, বর্ণ এবং রাজনৈতিক ভেদাভেদ ভুলে সকলেই এই অনুষ্ঠানে সামিল হয়। স্বাধীনতা দিবস উদযাপন অনুষ্ঠানে থাকে হুগলী জেলার বিখ্যাত স্কুল ব্যান্ড, ছৌ নাচ সহ নানাবিধ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

২০০ ফুটের জাতীয় পতাকা

এই কর্মসূচির উদ্যোক্তা সুরেশ সাউ বলেছেন, “প্রতি বছরে আমরা সহস্রাধিক মানুষকে সঙ্গে নিয়ে স্বাধীনতা দিবস পালন করি। এলাকার বিস্তীর্ণ এলাকা জুড়ে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রাও করা হয়।” তিনিও আরও বলেছেন, “প্রথম বছরে আমরা ২০০ ফুটের পতাকা উত্তোলন করেছিলাম। এবার তা ৩০০ ফুটে পৌঁছেছে।”

এই ব্যান্ডেল শহরের পিছনে রয়েছে ৫০০ বছরের পুরনো সুদীর্ঘ ইতিহাস। জড়িয়ে রয়েছে মোঘল সম্রাট আকবরের নাম। ভাস্কো-ডা-গামা ভারতে পশ্চিম উপকূলে অবস্থিত কালিকট বন্দরে এসেছিলেন। তার প্রায় ১০০ বছর পরে পর্তুগিজরা বাংলায় প্রবেশের পরিকল্পনা করে। ১৫৩৭ সালে শের খাঁ-কে পরাস্ত করেন পর্তুগিজ অ্যাডমিরাল সাম্পায়ো। সেই যুদ্ধ জয়ের পরেই পর্তুগিজরা গঙ্গার পাশে বাণিজ্যকুঠি গঠনের অধিকার লাভ করে। সেই সুবাদেই ১৫৭১ সালে সম্রাট আকবর হুগলি জেলায় গঙ্গার ধারে পর্তুগিজদের শহর নির্মাণের অনুমতি দিয়েছিলেন।

সেই অনুমতি লাভের আট বছর পরে গঠিত হয় পর্তুগিজদের বাণিজ্যকুঠি। সেই কুঠি দেখাশোনার জন্য তৈরি করা হল দুর্গ। সেই দুর্গের আশেপাশে প্রথমে নগর এবং পরে বন্দর গঠিত হয়। সেই বন্দরের নামই হচ্ছে ব্যান্ডেল। পর্তুগিজ ভাষায় ‘ব্যান্ডেল’ শব্দের অর্থ হচ্ছে বন্দর।

Advertisement
----
-----