৩১ মে, ১৯৯৯: একের পর এক বেয়নেটে কাবু হয়ে পড়েছিল পাক সেনা

কার্গিল। নামটা শুনলে আজও গায়ে কাঁটা দেয় ভারতবাসীর। তিন মাস ধরে বরফ ঢাকা পাহাড়ে যুদ্ধ করেছিল দুই দেশ। প্রত্যেকদিন জওয়ানদের রক্তে রাঙা হয়েছিল লাদাখের এই অংশ। শত্রুদের হারিয়ে জয় ছিনিয়ে নিয়ে এসেছিল ভারত। আকাশপথেও চলেছিল আভিযান। সেই শহিদদের ঋণ আজও মনে রেখেছে দেশবাসী।

কি হয়েছিল ৩১ মে?

শত্রুরা তখন ক্রমশ ঘিরে ফেলতে চাইছে ভারতীয় সেনাকে। পয়েন্ট ৭৮০২ শতরুদের হাত থেকে বাঁচাতে জওয়ানদের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন মেজর সুরী। ক্রমশ এগিয়ে যান শত্রুদের দিকে। তাদের হাত থেকে ছিনিয়ে নেন মীর কালসি রিজ। তাঁর সাহসী পদক্ষেপ সেদিন পাক সেনার হাত থেকে ভারতের ওই অংশকে বাঁচিয়ে দিয়েছিল। পরবর্তীকালে তাঁকে বীরচক্র সম্মান দেওয়া হয়।

৩০ মে, ১৯৯৯: বুলেটের ক্ষত গায়ে টোলোলিং-এর দিকে এগিয়ে যাচ্ছিলেন মেজর…

জম্মু ও কাশ্মীরের পান্ডু দখল করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল লেফট্যানেন্ট এন এ সাল্লিককে। তিনি তাঁর দল নিয়ে এই কাজেই এগিয়ে গিয়েছিলেন। জওয়ানদের নিয়ে শত্রুদের আয়ত্তে নিয়ে আসেন অনায়াসে। পরপর বেয়নেটে কাবু হয়ে যায় পাক সেনা। তাঁর অদম্য জেদের জেরেই এক পা এগোতে পারেনি শত্রুপক্ষ। তাঁকেও পরবর্তীকালে বীরচক্র সম্মান দেওয়া হয়।

২৯ মে, ১৯৯৯: কার্গিলের আকাশ ছেয়ে গিয়েছিল ফাইটার জেটের ধোঁয়ায়

Advertisement
---
-----