নয়াদিল্লি: দাদা একটা হুইসপার দেবেন? ওষুধের দোকানে সর্বসমক্ষে দাড়িয়ে এই নামি স্যানিটারি ন্যাপকিনের প্যাকেট চাইতে গিয়ে মেয়েদের গলার স্বরটাও যেন হুইসপারের মাত্রাতেই নেমে আসে৷ সারাদিন বাড়িতে তারস্বরে চিৎকার করা মেয়ের গলার স্বরটাও যেন এই নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসটি কিনতে গিয়ে নেমে যায়৷ অবশ্য সব মহিলারা স্যানিটারি ন্যাপকিন কিনতে গিয়ে লজ্জা পান না৷ কিন্তু লজ্জা পাওয়ার অংশটা বোধহয় এখনকার ডিজিট্যাল জমানায় একটু বেশিই বলা চলে৷

মহিলা স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লুএইচও) দ্বারা পরিচালিত একটি সমীক্ষা অনুযায়ী, দেশের ৩৬ শতাংশ মহিলা এখনও দোকানে গিয়ে প্রয়োজনীয় স্যানিটারি দ্রব্য কিনতে অস্বস্তি বোধ করেন৷ শুনতে অবাক লাগলেও দেশের বড় বড় শহরগুলি থেকে সংগৃহীত ৫০০ নমুনা পরীক্ষা করে এই ফলাফলই প্রকাশ করেছে উইমেন হেলথ অর্গানাইজেশন৷ সংগৃহীত ৫০০ নমুনার মধ্যে ১৪৮ জন রাজধানী শহর দিল্লির মহিলা ছিলেন৷

Advertisement

তবে শুধু স্যানিটারি ন্যাপকিন কিনতে গিয়ে অস্বস্তিবোধ করেই মহিলাদের ভোগান্তির শেষ নয়৷ জানা গিয়েছে, পিরিয়ড শুরুর সময় ৪৩ শতাংশ মহিলাদের কাছে প্রয়োজনীয় স্যানিটারি দ্রব্য থাকেনা৷ ৪৫ শতাংশ মহিলা এখনও ভারতীয় সমাজে পিরিয়ডকে নিষিদ্ধ বলে মনে করেন৷ কিনতে গিয়ে অস্বস্তি হোক বা প্রয়োজনের সময় অভাবই হোক ২০১৫-১৬ সালে ন্যাশনাল ফ্যামিলি হেল্থ প্রকাশিত সমীক্ষার ফলাফল অনুযায়ী, ভারতীয় মহিলাদের মধ্যে মাত্র ৫৭.৬ শতাংশ স্যানিটারি ন্যাপকিন ব্যবহার করেন৷

আমরা অনেকেই এই ভুল ধারণায় বিশ্বাসী যে আধুণিক প্রজন্ম সবদিক থেকেই এগিয়ে৷ অন্য সব দিক থেকে ধারণাটি সত্য হলেও স্যানিটারি ন্যাপকিন ব্যবহারের দিক থেকে ধারণাটি তথ্যগত ভাবে ভুল৷ এনএফএইচ প্রকাশিত রিপোর্ট সূত্রে জানা গিয়েছে, ১৫ থেকে ২৪ বয়সের মধ্যে যে সকল মহিলা রয়েছেন তাদের মধ্যে ৬২ শতাংশ স্যানিটারি ন্যাপকিনের থেকে কাপড় ব্যবহার বেশি পছন্দ করেন৷

----
--