মুম্বই: লালগড়ের জঙ্গলে দেখা গিয়েছে রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার৷ নর্দমা থেকে উদ্ধার হচ্ছে কুমির৷ অদ্ভুত সব ঘটনার সাক্ষী থাকতে হচ্ছে বনদফতরকে৷

নদ-নদী ছেড়ে নর্দমার জলে চড়ে বেড়াচ্ছে কুমীর৷ মুম্বইয়ের মুলুন্ড এলাকার একটি নির্ণীয়মান সাইটের নর্দমা থেকে একটি কুমির উদ্ধার করল বনদফতর৷ রবিবার ৪.৪ ফুট লম্বা ও ৮.৮ কেজি ওজনের ওই কুমির প্রথম স্থানীয় বাসিন্দাদের নজরে আসে৷ তারাই খবর দেয় বনদফতরকে৷ প্রায় সাত ঘন্টার চেষ্টায় এই সরীসৃপ প্রাণীটিকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে৷

লোকালয়ে কুমির দর্শন এই প্রথম নয়৷ এর আগেও তাদের নিজস্ব এলাকার বাইরে দেখা গিয়েছে৷ মুলুন্ড এলাকার আগে মুম্বইয়ের তুলসী ও বিহার লেক থেকে কুমির উদ্ধার করেছেন বনকর্মীরা৷ তবে সেটা ছিল বর্ষাকাল৷ এক বনদফতরের আধিকারিক জানিয়েছেন, বর্ষাকালে বন্যার জলের তোড়ে কুমির লোকালয়ে চলে আসে৷ কিন্তু বসন্তকালে কুমির চলে আসার ঘটনা একটু অস্বাভাবিক৷

সেই কারণে কুমিরের সম্ভাব্য রুট নিয়ে চর্চা শুরু হয়েছে থানের বনকর্মীদের মধ্যে৷ কেউ কেউ বলছেন, গত বছর বন্যার সময় তুলসী ও বিহারের লেকের জলেই ভেসে এসেছিল কুমিরটি৷ এতদিন নর্দমার জলেই ছিল৷ রবিবার নজরে আসে বিষয়টি৷

রবিবার দুপুর ৩টে নাগাদ ১৫জনের উদ্ধারকারী দল পৌঁছায় স্পটে৷ কুমিরটি যাতে কোনকারণে নর্দমা থেকে বেরতে না পারে সেই জন্য সম্ভাব্য বেরনোর পথগুলি ঘিরে ফেলা হয়৷ এরপর নর্দমা থেকে জল পাম্পের সাহায্যে নামিয়ে আনা হয়৷ জল নামতেই দেখা যায় কুমিরটিকে৷ এরপর নেট ফেলে ধরা হয় তাকে৷ তবে অনেক কসরত করার পর জালে ধরা পড়ে বাবাজী৷

কুমিরকে উদ্ধার করে বনদফতরের অফিসে নিয়ে যাওয়া হয়৷ পরীক্ষা নিরিক্ষা করে প্রাণী বিশেষজ্ঞ ডাঃ রিনা দেব জানান, পুরুষ কুমিরটির বয়স পাঁচ থেকে ছয় বছর৷ তবে সেটি সুস্থ সবল আছে৷ সোমবার কুমিরটিকে বনকর্মীরা তার ‘বাড়ি’তে মানে তার স্বাভাবিক বিচরণ স্থলে ছেড়ে দিয়ে আসে৷

----
--