নতুন হস্টেলে স্থানের দাবিতে অনির্দিষ্টকালের জন্য অনশন ৬ মেডিক্যাল কলেজ পড়ুয়ার

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: প্রথম বর্ষের পড়ুয়াদের থাকতে দেওয়া হয়েছে নতুন তৈরি ছাত্রাবাসে৷ অভিযোগ, দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ বর্ষের পড়ুয়াদের ছাত্রাবাসের মান অত্যন্ত খারাপ৷ রয়েছে স্থানাভাবও৷ ওই পড়ুয়াদের অভিযোগ, হস্টেলের বেশিরভাগ ঘরই থাকার উপযুক্ত নয়৷ অধিকাংশ ঘরে নেই খাট৷

তাই সিনিয়র বর্ষের পড়ুয়াদের দাবি, তাদেরও নতুন তৈরি ছাত্রাবাসে থাকতে দিতে হবে৷ দাবি আদায় করতে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের পথেই হাঁটল মেডিক্যাল কলেজের সিনিয়র বর্ষের পড়ুয়ারা৷ মঙ্গলবার দুপুর ২.৩০ নাগাদ অনির্দিষ্টকালের জন্য অনশনে বসেন ছয় জন পড়ুয়া৷

আরও পড়ুন: ব়্যাগিং-এর অভিযোগে বহিষ্কৃত এসআরএফটিআইয়ের এক ছাত্র

ভরতি প্রক্রিয়ায় আর্টস ফ্যাকাল্টির ছয়টি বিভাগে প্রবেশিকা পরীক্ষা ফিরিয়ে আনার দাবিতে গত শুক্রবার রাত ১১টা থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য অনশন কর্মসূচি গ্রহণ করেছিলেন ২০ জন পড়ুয়া৷ তাঁদের মধ্যে স্বাস্থ্যের অবনতি হওয়ায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয় ৪ জনকে৷ তারপরও অনশন চালিয়ে গিয়েছেন বাকি পড়ুয়ারা৷ তাঁদের চাপে শেষ পর্যন্ত প্রবেশিকা ফিরিয়ে আনতে এক প্রকার বাধ্য হয় যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ৷ যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়কে অনুসরণ করে নিজেদের দাবিদাওয়া কলেজ কর্তৃপক্ষকে মানতে বাধ্য করাতে মঙ্গলবার থেকেই অনশনে বসেন ৬ জন পড়ুয়া৷

আরও পড়ুন: ফের প্রবেশিকা পরীক্ষার দিন ঘোষণা করল যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়

নতুন তৈরি ছাত্রাবাসে থাকতে দেওয়া হয়েছে প্রথম বর্ষের পড়ুয়াদের৷ অথচ, পুরানো যে ছাত্রাবাসে দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ বর্ষের পড়ুয়ারা থাকেন সেখানে রয়েছে স্থানাভাব৷ অনুন্নত মানের কারণে অধিকাংশ ঘর থাকার উপযুক্ত নয়৷ এমনই একাধিক অভিযোগ তোলা হয়েছে সিনিয়র পড়ুয়াদের তরফ থেকে৷ তাঁদের অভিযোগ, হস্টেলের অবস্থা সহ অন্যান্য আরও কতগুলি সমস্যা সম্পর্কে একাধিকবার কলেজ কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে৷ কিন্তু, কর্তৃপক্ষের তরফে কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি৷ নতুন ছাত্রাবাসে স্থান দেওয়া সহ মোট পাঁচ দফা দাবি নিয়ে অনশনে বসেন পড়ুয়ারা৷ তাঁরা জানিয়েছেন, কলেজ কর্তৃপক্ষ তাঁদের দাবি না মানা পর্যন্ত অনশন চালিয়ে যাবেন তাঁরা৷

আরও পড়ুন: এনার নখরায় মশগুল সাইবারবাসী

অনশন প্রত্যাহার করে নেওয়ার জন্য আবেদন জানাতে বুধবার বিকালে অনশনকারীদের মুখোমুখি হন কলেজের অধ্যক্ষ উচ্ছল ভদ্র। তবে, এদিন যাদবপুরের থেকে ঠিক উল্টো ছবি দেখা গেল মেডিক্যাল কলেজে৷ যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে মঙ্গলবার সকালে অনশনকারীদের অনশন তুলে নেওয়ার জন্য হাতজোড় করে আবেদন করেন সহ উপাচার্য প্রদীপ কুমার ঘোষ৷ কিন্তু, এদিন তাঁদের দাবি মেনে নেওয়ার জন্য অধ্যক্ষের হাত-পা ধরে অনুরোধ করল মেডিক্যাল কলেজের আন্দোলনকারী পড়ুয়ারা৷ তাঁদের আবেদনে অধ্যক্ষ শুধুমাত্র সমস্যাগুলি দেখা হচ্ছে বলে জানান৷ তিনি জানিয়েছেন, সমস্যাগুলি সমাধান করার জন্য সময় লাগবে৷

আরও পড়ুন: সেতুর দাাবি নাকচ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী, আন্দোলনে জোট বাঁধছে ফাঁসিঘাট

হাতে-পায়ে ধরে অনুরোধ করার পরও কোনও সদুত্তর দেননি অধ্যক্ষ৷ তাই দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত অনির্দিষ্টকালের জন্য অনশন চালিয়ে যাবেন বলে জানিয়েছেন অনশনরত পড়ুয়ারা৷ মেডিক্যাল কলেজের পড়ুয়াদের এই আন্দোলনকে সমর্থণ জানানো হয়েছে অল ইন্ডিয়া স্টুডেন্ট অর্গানাইজেশনের (এআইএসএ) পক্ষ থেকে৷ এআইএসএ-এর দাবি, যত শীঘ্র সম্ভব হস্টেলের জন্য স্বচ্ছ কাউন্সেলিং-এর ব্যবস্থা করতে হবে কলেজ কর্তৃপক্ষকে৷

আরও পড়ুন: ক্লাসের মধ্যেই গোখরো, হইচই জলপাইগুড়ির স্কুলে

Advertisement
----
-----