কোন্দাগাও: বিকৃত লালসার শিকার সেই শিশু৷ দাদুর হাত ধরে খেলছিল ৪ বছরের খুদে৷ মন ঘুরে যায় দাদুর৷ খেলার নামে নিজের নাতনিকেই ধর্ষণ করল৷ প্রমাণ লোপাটে শিশুকে খুন করা হয়৷ অভিযুক্ত দাদুকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ৷ জেরার মুখে দোষ স্বীকার করেছে ৬০ বছরের প্রৌঢ়৷

ছত্তিশগড়ের কোন্দাগাঁওয়ে ধর্ষণের ঘটনা৷ ৪ বছরের শিশুকে ধর্ষণের পর থুন করা হয়৷ প্রমাণ মেটাতে মাটির তলায় দেহ চাপা দিয়ে রাখা হয়৷ পুলিশি জেরায় মুখে সমস্ত দোষ স্বীকার করে ধৃত প্রৌঢ়৷ মেডিক্যাল রিপোর্ট অনুসারে, নারকীয় অত্যাচার চলার সময়ই শিশুর মৃত্যু হয়৷

ধরা পড়ার ভয়ে শিশুর দেহ মাটি চাপা দেয় অভিযুক্ত প্রৌঢ়৷ মাটির উপর ঘাস ছড়িয়ে দেওয়া হয়৷ মেয়ের খোঁজ না পেয়ে পুলিশে অভিযোগ দায়ের করে শিশুর বাবা,মা৷ পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে তল্লাশি চালালে শিশুর দেহ উদ্ধার হয়৷ ঘটনায় হতবাক শিশুর বাবা, মা৷

কোন্দাগাঁওর এসপি অভিষেক পল্লভ জানাচ্ছেন, ১১ জুন শিশুকে ধর্ষণ করে খুন করা হয়৷ নিজের ছেলে ও ছেলের বউয়ের সঙ্গেই থাকে অভিযুক্ত ব্যক্তি৷ বাড়ির পাশেই মাঠে নাতনি খেলাতে নিয়ে যায়৷ তারপরই ৪ বছরের শিশুটি নিখোঁজ হয়৷ কোন্দাগাঁও থানায় অভিযোগ দায়ের করে শিশুর বাবা,মা৷ নানা জায়গায় খোঁজ করার পর বৃহস্পতিবার বাড়ি ও পাশের মাঠে তল্লাশির সিদ্ধান্ত নেয় পুলিশ৷ সামনে আসে আসল সত্য৷ অভিযুক্তকে দেখেই তার উপর ঝাপিয়ে পড়ে কুকুর৷ তারপরই মাঠে উদ্ধার হয় শিশুর দেহ৷

নৃশংস এই ঘটনায় রীতিমত আতঙ্কিত কোন্দাগাঁওয়ের মানুষ৷ কারণ,এপ্রিল মাসেই ১৮ বছরের তরুণীতে ধর্ষণের অভিযোগে তরুণীর দাদুকে গ্রেফতার করে পুলিশ৷ তার ঠিক ২ মাসের মধ্যে আরও একটি শিশু ধর্ষণ ও খুনের ঘটনায় এলাকায় বাড়ছে ক্ষোভ৷ গ্রামে পুলিশ মোতায়েনের দাবি উঠছে৷

----
--