প্রতিকি ছবি..

নয়াদিল্লি : মুজফফরপুর, দেওরিয়ার হোমের ঘটনায় উদ্বিগ্ন সুপ্রিম কোর্ট৷ মঙ্গলবার এই প্রশ্নই কেন্দ্রের সামনে তুলে ধরল শীর্ষ আদালত৷ আদালতের পর্যবেক্ষণ দেশের নারীদের সুরক্ষা প্রশ্নের মুখে৷

ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ড ব্যুরোর তথ্যের ওপর ভিত্তি করে কেন্দ্রকে কার্যত একহাত নেয় শীর্ষ আদালত৷ আদালতের পর্যবেক্ষণ, কেন্দ্র একেবারেই এই ইস্যুতে সচেতন নয়৷ এনসিআরবি-র তথ্য অনুযায়ী প্রতি ছঘন্টায় একটি করে ধর্ষণের ঘটনা ঘটে৷ কোন পথে এগোচ্ছে দেশ? প্রশ্ন সুপ্রিম কোর্টের৷

এব্যাপারে প্রত্যেকের সচেতন হওয়া উচিত বলে মত আদালতের৷ এদিন শীর্ষ আদালত জানিয়েছে ৩৮ হাজারেরও বেশি ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে দেশে৷ এই তালিকায় প্রথমেই রয়েছে মধ্যপ্রদেশ৷ তারপর রয়েছে উত্তরপ্রদেশ৷ দেশে ঠিক কি চলছে এটা? প্রশ্ন তুলেছে আদালত৷

মুজফফরপুর হোমের শুনানি চলাকালীন এই মন্তব্য করে আদালত৷ কড়া ভর্ৎসনা করা হয় বিহার সরকারের ভূমিকার৷ কীভাবে প্রশাসনের নাকের ডগা দিয়ে এই ধরণের অবৈধ কার্যকলাপ চলত, তা চিন্তার বিষয় বলে জানিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট৷

যে স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাটি এই হোম চালাত, তা ২০০৪ সাল থেকে সরকারি টাকার মদতপুষ্ট৷ তাহলে কীভাবে গোটা ঘটনাটি সরকারের চোখ এড়িয়ে যায়৷ কখনও কেন কোনও তদন্ত চালানোর প্রয়োজন অনুভাব করেনি ক্ষমতাসীন সরকার? জানতে চেয়েছে শীর্ষ আদালত৷

বিহার সরকারকে আদালতের প্রশ্ন ঘটনায় অভিযুক্তদের শাস্তির ক্ষেত্রে কি পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার? বিহার সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, নিয়মিত সরকারের পক্ষ থেকে ওই হোমে নজরদারি চলত৷ তবে তা মানতে রাজি নয় আদালত৷ তাদের পর্যবেক্ষণ, সঠিকভাবে নজরদারি চললে কোনওভাবেই এই ঘটনা মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে পারত না৷

এরআগে, মঙ্গলবারই ১২ বছরের কম বয়সের নাবালিকাদের ধর্ষণে দোষীদের কঠোর শাস্তি দেওয়ার জন্য ফৌজদারি আইন (সংশোধনী) বিল, ২০১৮ পাস হল রাজ্যসভায়। জুলাই মাসে বিলটি লোকসভায় পাস হয়। তারপর এদিন রাজ্যসভায় সর্বসম্মতিক্রমে ধ্বনিভোটে পাস হয় বিলটি। সংসদে বিল পাস হওয়ার পর রাষ্ট্রমন্ত্রী কিরেন রিজিজু বলেন, ‘‌সংসদের উভয় কক্ষে বিলটি পাস হয়েছে। এরপর পরিকল্পনা মতো তা বাস্তবায়িত করা হবে। তবে তার জন্য বেশ কয়েকটি পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।’‌

ফৌজদারি আইন (সংশোধনী) বিল, ২০১৮ বলা হয়েছে, যদি ধর্ষিতার বয়স ১৬ বছরের কম হয় তাহলে ২০ বছরের জেল হবে। আর গণধর্ষণ করলে দোষী প্রমাণিত সকলেই যাবজ্জীবন কারাদন্ডের নির্দেশ দেওয়ার সংস্থান করা হয়েছে ওই বিলে৷

----
--