এই হনুমান মন্দিরেই নাকি নারীরূপে পূজিত হন শনিদেব!

কষ্টভঞ্জন মন্দির৷ আহমেদাবাদ থেকে ১৫০কিলোমিটার দূরে রয়েছে এই মন্দিরটি৷ শিরোনাম পড়ে হয়তো অদ্ভুত লাগতে পারে অনেকেরই৷ বহু পুরনো এই মন্দিরের প্রধান দেবতা হনুমানজি হলেও, প্রতি শনিবার কিন্তু এখানে পুজো হয় শনিদেবের৷ সেদিনও উপচে পড়ে ভিড়৷ এই মন্দিরকে ঘিরেই রয়েছে রহস্য৷

আরও পড়ুন: স্ত্রী দিলেন অভিশাপ, এমন কী করেছিলেন শনিদেব?

এই কষ্টভঞ্জন মন্দিরে পুজো দিলে নাকি দুঃখকষ্ট দূর হয়, এমনই বিশ্বাস স্থানীয়দের৷ শুধু হনুমানজি নন, এই মন্দিরে যে রয়েছেন শনিদেব, তাই এ বিশ্বাস আরও দৃঢ় হয়ে যায়৷ তবে একটা উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, এই মন্দিরে শনিদেবের পূজো হয় নারীরূপে৷ তবে তাঁর যে মূর্তিটি রয়েছে তা দেখে চট করে চেনা মুশকিল ইনিই শনিদেব৷

- Advertisement -

প্রচলিত রয়েছে যে, একসময় পৃথিবীতে শনিদেবের প্রকোপ বৃদ্ধি পেলে মানুষ ত্রাতা হিসেবে হনুমানজির শরণ নেয়৷ আর তাদের প্রার্থনায় সাড়া দিয়ে হনুমানজি শনিদেবকে জব্দ করবেন বলে মনোস্থির করেন৷ তবে শনিদেব এই শাস্তির হাত থেকে বাঁচতে নারীরূপ ধারণ করেন বলে শোনা যায়৷ ক্ষমা চান হনুমানজীর কাছে৷ এই ঘটনাই উঠে এসেছে কষ্টভঞ্জন রূপে৷ এই হনুমান মন্দিরে তাই আজও নারীরূপে পূজিত হন শনিদেব৷