সপ্তম বেতন কমিশন চালুর দাবিতে শিক্ষামন্ত্রীকে চিঠি আবুটার

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: একাধিক রাজ্যে ইতিমধ্যেই লাঘু করা হয়ে গিয়েছে সপ্তম বেতন কমিশন৷ কিছু রাজ্য লাঘু করার পথেই হাঁটছে৷ কিন্তু, এক বছর অতিক্রম করে গেলেও এখনও সপ্তম বেতন কমিশন চালু করে কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় অধ্যাপকদের সংশোধিত বেতন দেওয়ার কোনও উচ্চবাচ্য করছে না পশ্চিমবঙ্গ সরকার৷ তাই অবিলম্বে সপ্তম বেতন কমিশন চালুর দাবি জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে চিঠি দিল অল বেঙ্গল ইউনিভার্সিটি টিচার্স অ্যাসোসিয়েশন (আবুটা)৷

আবুটার বক্তব্য, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকদের বেতন সংশোধন নিয়ে কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের এক বছর পরেও এ বিষয়ে রাজ্য সরকার অবাক ভাবে নীরব হয়ে রয়েছে৷ ফলে, এই কঠিন সময়ে বকেয়া মেটানো তো দূর স্থান, বেতন বৃদ্ধির আইনি অধিকার থেকেই বঞ্চিত করা হচ্ছে রাজ্যের শিক্ষক মহলকে৷ তাই আবুটার পক্ষ থেকে অবিলম্বে সপ্তম বেতন কমিশন চালু করার দাবি জানানো হয়েছে শিক্ষামন্ত্রীকে দেওয়া চিঠিতে৷ শুধু বেতন বৃদ্ধি নয়, দাবি জানানো হয়েছে বকেয়া মেটানোরও৷ বলা হয়েছে, বেতন বৃদ্ধির পরে যত দ্রুত সম্ভব একটি ইনস্টলমেন্টে বকেয়া মিটিয়ে দিতে হবে৷

সপ্তম বেতন কমিশনের ভিত্তিতে মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের তরফে ২০১৭ সালের ২ নভেম্বর ও ৮ নভেম্বর বিজ্ঞপ্তি জারি করে কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকদের সংশোধিত বেতনের কথা জানানো হয়েছিল৷ বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, এই বেতন লাঘু হওয়ার কথা ২০১৬ সালের ১ জানুয়ারি থেকে৷ এই বিজ্ঞপ্তি অনুসরণ করে মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রক ২০১৮ সালের ২৬ জুলাই আর একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করে৷ যেখানে বলা হয়, সংশোধিত বেতন প্রকল্পের অধীনে সপ্তম বেতন কমিশন লাঘু করলে রাজ্য সরকারের উপর যে আর্থিক চাপ পড়বে তার কিছু শতাংশ কেন্দ্রীয় সরকার থেকে দেওয়া হবে৷

- Advertisement -

তবে, রাজ্য সরকার কিছু শর্তাবলী পূরণ করলে তবেই কেন্দ্রীয় সরকার ২০১৯ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত এই আর্থিক সাহায্য করবে তা স্পষ্ট করে জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল ২৬ জুলাইয়ের বিজ্ঞপ্তিতে৷ শর্তাবলীগুলি হল, রাজ্য সরকারকে ও তার অধীনস্ত বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজগুলিকে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সব শর্তাবলী মেনে, কোনও পরিবর্তন ছাড়া, সম্পূর্ণ সংশোধিত বেতন কাঠামো লাঘু করতে হবে৷ এটিকে যুক্ত প্রকল্প হিসাবে গ্রহণ করতে হবে রাজ্য সরকারকে এবং সংশোধিত বেতন কাঠামো অনুযায়ী বেতন দিতে হবে৷ এই শর্তাবলী অনুযায়ী রাজ্য সরকারকে দ্রুত বিস্তারিত প্রস্তাব তৈরি করে তা মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের কাছে পাঠিয়ে দিতে হবে৷

আবুটার যুগ্ম সম্পাদক গৌতম মাইতি বলেন, ‘‘এই বছর ২৬ জুলাইয়ের বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়ে দেওয়া হয় যে, বেতন কাঠামো লাঘু করলে কেন্দ্রীয় সরকার নিজের অংশ দিয়ে দেবে৷ তার শর্তাবলীও জানিয়ে দেওয়া হয় ওই বিজ্ঞপ্তিতে৷ রাজ্য সরকারকে বলা হয়, তোমরা লাঘু করে আমাদের কাছে আবেদন কর, আমরা আমাদের অংশ দিয়ে দেব৷ ইতিমধ্যেই হরিয়ানায় এই বেতন কাঠামো লাঘু করা হয়েছে৷ কিন্তু, দুর্ভাগ্যবশত পশ্চিমবঙ্গ সরকার ২০১৬ সালের জিনিস এখনও ফেলে রেখেছে৷ অথচ, কেন ফেলে রাখা হয়েছে সে বিষয়ে কোনও সদুত্তরও দিচ্ছে না৷’’ দ্রুত এই দাবি না মানা হলে রাজ্যের অন্যান্য অধ্যাপক সংগঠনগুলিকে নিয়ে বৃহত্তর আন্দোলনে নামার ডাক দেওয়া হয়েছে আবুটার পক্ষ থেকে৷

Advertisement ---
---
-----