ভুলেও এই ৪ নারীকে অপমান করবেন না, করলেই সর্বনাশ!

কবি তুলসীদাসের ‘রামচরিতমানস’ সম্পর্কে জানেন অথচ তা সম্পূর্ণ পড়ে উঠতে পারেননি এমন অনেকেই রয়েছেন৷ কিন্তু তাঁরা কি জানেন তাঁর মধ্যে এমন বহু কথা রয়েছে যা আপনার জন্য খুবই প্রয়োজনীয়৷ তাঁর এই মহাকাব্যে উঠে এসেছে যেমন রামকথা তেমনই উঠে এসেছে হাজার হাজার বছরের ভারতীয় ঐতিহ্য৷ উঠে এসেছে নারীদের কথা৷ যেখানে তিনি নারীকে লক্ষ্মীর অবতার রুপেই মনে করেছেন৷ আর এই ধরনের নারীদের অবমাননা করলে পুরুষের জীবেন সর্বনাশ আসতে যে বাধ্য তাও জানিয়ে দিয়েছেন স্পষ্টভাবে৷ চলুন দেখে নেওয়া যাক এই চার প্রকারের নারীদের মধ্যে কে কে রয়েছেন?

আরও পড়ুন: কাউকে বশে আনতেও নাকি চাণক্য নীতি অতুলনীয়!

বোন- বোনকে কবি তুলসীদাস মাতৃসমা বলে বর্ণনা করেছেন তাঁর লেখায়৷ নিজের বোনকে অসম্মান করার অর্থ নিজের কূলকে অসম্মান করা৷ আর তা নিঃসন্দেহে যে সেই পুরুষের জীবেন দুর্ভোগ ডেকে আনবে সে বিষয়েও কিন্তু জানিয়ে দিয়েছেন তিনি৷

- Advertisement -

পুত্রবধূ- পুত্রবধূ সংসারের লক্ষ্মী৷ বংশকে এগিয়ে নিয়ে যান পূত্রবধূ। তাঁকে অসম্মান প্রদর্শনে সংসারে অশান্তি আসতে পারে৷ তাই পুত্রবধূর সম্মান মানে সংসারে শান্তি৷

ভায়ের স্ত্রী- বড় ভাইয়ের স্ত্রীকে অসম্মান করার অর্থ পূত্রবধূরই তুল্য মহিলাকে অপমান করা৷ সে কারণে এঁদের প্রতি অসম্মান প্রদর্শন থেকে বিরত থাকতে হবে৷ তাহলে পাপের ভাগীদার হতে হবে৷

আরও পড়ুন: চাণক্য নীতি অনুযায়ী জেনে নিন কিভাবে হিপনোটাইজ করবেন?

মেয়ে- তাঁর এই তালিকার সব শেষে রয়েছে মেয়ে। পিতা ও কন্যার সম্পর্ককে পবিত্রতম বলে মনে করেন কবি। তাকে অপমান করার অর্থ নিজেকেই অপমান করা৷ তাই এই বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে৷

‘রামচরিতমানস’-এর বিভিন্ন তথ্য সম্পর্কে নানা জনের নানা মত থাকলেও, এটা অনস্বীকার্য যে বহুল প্রচলিত ‘সংসার সুখের হয় রমণীর গুণে’ কথাটিতে সত্য মনে করলে সেই রমণীকে সম্মান প্রদর্শনের বিষয়টিও কিন্তু মাথায় রাখতে হবে আপনাকেই৷

Advertisement ---
---
-----