কলকাতা: পশ্চিমবঙ্গ লাগোয়া বাংলাদেশ সীমান্ত দিয়ে ভারতে ঢুকছে বিপুল পরিমাণে ‘বাংলা টাকা’। জাল নোট বা কালো টাকা নয়, বঙ্গবন্ধুর ছবি দেওয়া আসল বাংলাদেশি নোট ঢুকছে ভারতে। ভারতীয় মুদ্রায় পাঁচ টাকার বিনিময়ে বিক্রি হচ্ছে বাংলাদেশের ২ টাকার নোট। রাজ্যের সীমান্তবর্তী উত্তর চব্বিশ পরগনা, নদিয়া, মালদা, মুর্শিদাবাদ এবং দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার সীমান্ত এলাকায় বিক্রি হচ্ছে ওই নোট। নেশার উপকরণ হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে বাংলাদেশের দুই টাকার নোট। যা মাদকাসক্তদের কাছে খুবই জনপ্রিয়।

প্রধানমন্ত্রীর ৫০০ এবং ১০০০ টাকার নোট বাতিল হয়ে যাওয়ার কারণে সীমান্তে বন্ধ হয়ে গিয়েছে চোরাচালান। জাল টাকার কারবারও নির্মূল হয়ে গিয়েছে। এই পরিস্থিতিতে নয়া কারবারের নেমেছে সীমান্তবর্তী এলাকার অসাধু ব্যবসায়ীরা। গোয়েন্দা সূত্রে জানা গিয়েছে, হেরোইন ও নেশার ট্যাবলেট ইয়াবা সেবনের সময় ওই নোটকে মুড়ে পাইপ হিসেবে ব্যবহার করা হয়। নেশাখোরদের ভাষায় ওই পাইপের নাম ‘পান্নি’। বাংলাদেশের দুই টাকার নোট মুড়ে পান্নি বানিয়ে বেশ কয়েকবার নেশা করা যায়। স্থানীয় পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, আগে নেশার জন্য ব্যবহার হতো রাংতা কাগজ। কিন্তু, সেই কাগজ বেশিক্ষণ স্থায়ী হতো না। সেখানে দেখা গেল, বাংলাদেশের দুই টাকার নোট দিয়ে পাইপ বানিয়ে বেশ কয়েকবার নেশা করা যায় অনায়াসেই। সেই কারণেই এখন রাংতার জায়গা নিয়েছে বাংলাদেশের নোট। এই সুযোগ কাজে লাগিয়েই চোরাকারবারিরা শুরু করেছেন নতুন এই ব্যবসা।

চলতি মাসে সীমান্তে বিপুল পরিমাণের বাংলাদেশী নোট সহ দুই ব্যক্তিকে আটক করে বিএসএফ। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করে জানা গিয়েছে চাঞ্চল্যকর এই তথ্য। দুই দেশের তরফ থেকেই বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে প্রশাসন। বাংলাদেশী টাকার চোরাচালান রুখতে সীমান্তে নজরদারি চালানো শুরু করেছে জওয়ানরা।

----
--