পেট্রোপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে কেন্দ্র ও রাজ্যকে বিঁধলেন অধীর

স্টাফ রিপোর্টার, বহরমপুর: পেট্রল ডিজেলের মূল্য বৃদ্ধি নিয়ে কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারকে এক হাত নিলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি। মঙ্গলবার দুপুরে বহরমপুরে জেলা কংগ্রেস কার্যালয়ে সাংবাদিক বৈঠকে কেন্দ্রীয় সরকার ও রাজ্য সরকারকে তীব্র ভাষায় আক্রমণ করলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরী।

‘‘পেট্রল ডিজেলের দাম বাড়াতে এখন সাধারণ মানুষের ত্রাহি ত্রাহি অবস্থা। একদিকে মোদী সরকার বলেছিল আচ্ছে দিন আয়েগা৷ অন্যদিকে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী বলেন মা মাটি মানুষের সরকার তৈরি করব। পেট্রল ডিজেলের মূল্য বৃদ্ধি নিয়ে কেন্দ্রের মোদী অন্যদিকে রাজ্যের দিদি সাধারণ মানুষকে ধাপ্পাবাজি করছেন৷’’ এদিন এই বলে মন্তব্য করেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি।

পাশাপাশি তিনি বলেন, ‘‘বিশ্ব বাজারে তেলের দাম কম থাকলে তখনও এখানে বেশি দাম থাকছে৷ অন্যদিকে, যখন সেখানে দাম বাড়ছে তখনও আমাদের বেশ দামে তেল কিনতে হচ্ছে। কেন্দ্রীয় সরকার ও রাজ্য সরকার মনে করলে এই তেলের দাম কমাতে পারে৷ কিন্তু করছে না। কেন্দ্রীয় সরকার যদি তেলের যে এক্সসাইজ ডিউটি আদায় করছে তা কমিয়ে দেয় তাহলে তেলের এই মূল্যবৃদ্ধি একদিনে কমে যাবে৷ রাজ্য সরকার যদি তেলের ভ্যাট, সেলস ট্যাক্স কমিয়ে দেয় তাহলে এই তেলের দাম কমতে পারে৷’’

- Advertisement -

কিন্তু কেন্দ্রীয় সরকার ও রাজ্য সরকার তা না মানাতেই এই আকাশ ছোঁয়া মূল্য বৃদ্ধি। অধীরবাবু আরও বলেন, ‘‘দেশের টাকার দাম ডলারের থেকে দিনের পর দিন কমে যাওয়াতেই পেট্রল ডিজেলের মূল্য বৃদ্ধি। নোটবন্দির পর আজ এদেশের টাকার মূল্য আইসিইউ-তে চলে গিয়েছে। এখানে সরকার ব্যর্থ৷ দেশে শিল্প নেই, উৎপাদন নেই, বাণিজ্য নেই। সার্বিক ভাবে আগামী দিনে ভারতবর্ষের অর্থনীতি সাধারণ মানুষের কাছে মাথা ব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়াবে৷’’

পাশাপাশি এদিন তিনি আরও বলেছেন, ‘‘বর্তমানে বাংলায় সরকারি চাকরি নিয়োগ প্রক্রিয়ায় বড়সড় দুর্নীতি চলছে। তার কারণ একজন ডাব্লুবিসিএস পরীক্ষা দেওয়ার সময় শূন্য পাচ্ছে৷ কিন্তু পরীক্ষার পর তা বেড়ে হয়ে যাচ্ছে ১৩৬।’’ এই প্রসঙ্গকে টেনে তিনি প্রশ্ন তোলেন, ‘‘প্রশাসনিক স্তরের পরীক্ষায় এমন ভাবে নিয়োগ হলে আগামী দিনে রাজ্যের আইন শৃঙ্খলা কি হবে? পশ্চিমবঙ্গে সরকারি চাকরিতে এই দুর্নীতির কারণেই ডব্লুবিসিএস পরীক্ষার মত গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষাগুলোতে এমন দুর্নীতির ঘটনা সামনে আসছে৷’’

Advertisement ---
---
-----