লোকসভায় তৃণমূলকে আটকাতে অধীরেরও ভরসা কেন্দ্রীয় বাহিনী

স্টাফ রিপোর্টার, বহরমপুর: পঞ্চায়েতে ভোট লুঠ করেছে তৃণমূল কংগ্রেস৷ রাজ্য পুলিশকে কাজে লাগিয়ে বিরোধীদের নির্বাচনী ময়দানে ঘেঁষতেই দেয়নি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল৷ গত মে মাস থেকে কংগ্রেস-বিজেপি-সিপিএম নেতাদের মুখে বারবার শোনা গিয়েছে এই অভিযোগ৷

বিজেপির তরফে অবশ্য বারবার দাবি করা হয়েছে যে পঞ্চায়েতের পুনরাবৃত্তি লোকসভা ভোটে হবে না৷ কারণ, ২০১৯ সালের ওই নির্বাচনে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবে কেন্দ্রীয় বাহিনী৷ তাই আগামী বছরের ওই ভোটে বাংলার শাসক দলের কোনও জারিজুরি খাটবে না বলেই মনে করে বিজেপি৷ দলের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ গত কয়েক মাসে দলের বিভিন্ন সভায় বারবার এই মত ব্যক্ত করেছেন৷

আরও পড়ুন: ছিপছিপে মডেল নয়, মহিলা বক্ষেই আগ্রহ সব্যসাচীর

এবার তাঁর সুরে সুর মেলালেন অধীর চৌধুরী৷ প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতিও মনে করেন লোকসভা ভোটে কেন্দ্রীয় বাহিনীর দাপটে শাসক দল কোনওরকম জোর জবরদস্তির সুযোগ পাবে না৷ তাই মঙ্গলবার তৃণমূল কংগ্রেসর উদ্দেশ্যে বহরমপুরের সাংসদের হুঁশিয়ারি, ‘‘তৃণমূল কংগ্রেস যদি মনে করে পঞ্চায়েত মতো নির্বাচন করবে, তাহলে ভুল করছে৷ আগামী লোকসভা নির্বাচন কেন্দ্রীয় বাহিনী দিয়ে হবে৷ শুধুমাত্র রাজ্যের পুলিশ দিয়ে নয়৷’’

এদিন মুর্শিদাবাদের কান্দির যশোহরি আনুখা-২ গ্রাম পঞ্চায়েতে কংগ্রেসের বুথভিত্তিক সম্মেলন ছিল৷ সেই সম্মেলনেই তিনি শাসক দলকে তোপ দাগেন৷ পরে আর এক প্রসঙ্গ চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দেন তৃণমূল কংগ্রেসের উদ্দেশ্যে৷ বলেন, ‘‘লোকসভা ভোট এলাকার পুলিশ করবে না৷ রাজ্য নির্বাচন করবে না৷ লোকসভা ভোট করবে কেন্দ্র৷ যদি কেউ মনে করে লোকসভায় পঞ্চায়েত ভোট করবে, তবে করে দেখাক৷ আমরা চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করলাম।’’

আরও পড়ুন: রাহুল ও পন্তের জোড়া শতরানে লড়াইয়ে ভারত

কেন্দ্রীয় সরকার ও কেন্দ্রীয় বাহিনীর ভরসায় ‘নিরপেক্ষ’ ভোটের আশায় রয়েছে বিজেপি৷ সেই সুরে কেন অধীর চৌধুরী সুর মেলালেন, সেই প্রশ্নই মঙ্গলবার বিকেল থেকে ঘুরতে শুরু করেছে রাজনৈতিক মহলে৷ কারণ, গোটা দেশে একাধিক নির্বাচনে বিজেপির বিরুদ্ধে নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় প্রভাব খাটানোর অভিযোগ বারবার সরব হয়েছেন কংগ্রেসের সভাপতি রাহুল গান্ধী৷ এই পরিস্থিতিতে অধীর কেন উলটো পথে হাঁটলেন, উঠছে সেই প্রশ্নও৷

যদিও এদিন শুধু তৃণমূল কংগ্রেসের সমালোচনাতেই থেমে থাকেননি৷ বরং বিজেপিকেও একহাত নিয়েছেন৷ নানা ইস্যুতে সমালোচনা করেছেন বিজেপির৷ লোকসভা ভোটে বিজেপিরও মোকাবিলা করার জন্য কর্মীদের প্রস্তুত থাকতে বলেছেন তিনি৷

আরও পড়ুন: সাহায্য করুন! ফেসবুকে কাতর আবেদন নির্যাতিতা শিশুর বাবা-মায়ের

অন্যদিকে মুর্শিদাবাদে তৃণমূলের বিরুদ্ধে সন্ত্রাস করার অভিযোগ তুলেছেন৷ তাঁর দাবি, যাঁরা কংগ্রেস ছেড়ে দল বদলেছেন, তাঁরাই এখন জেলার কংগ্রেস কর্মীদের হুমকি দিচ্ছেন৷ শাসক দলের উদ্দেশ্যে তাঁর হুঁশিয়ারি, ‘‘আমরা কংগ্রেস করি৷ ভয় পাই না আমরা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করি৷

----
-----