বর্ধমানে শুরু হল আদিবাসী সম্মেলন

বর্ধমান: আসন্ন পঞ্চায়েত নির্বাচনকে মাথায় রেখেই রাজ্য সরকারের উন্নয়ন পরিকল্পনাকে আদিবাসী সম্প্রদায়ের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে শনিবার থেকে শুরু হল দুদিন ব্যাপী আদিবাসী (মাঝি, মোড়ল) সম্মেলন।

শনিবার বর্ধমানের সংস্কৃতি লোকমঞ্চে এই সম্মেলনের উদ্বোধন করেন আদিবাসী সম্প্রদায়ের প্রতিনিধি তথা বর্ধমান জেলা পরিষদের সভাধিপতি দেবু টুডু। উপস্থিত ছিলেন বর্ধমানের জেলাশাসক ডক্টর সৌমিত্র মোহন সহ প্রশাসনের আধিকারিকরা। সভাধিপতি এদিন জানিয়েছেন, বর্ধমান জেলায় পিছিয়ে পড়া আদিবাসী সম্প্রদায়ের মানুষদের উন্নয়ন ঘটাতে তাঁকে সভাধিপতি হিসাবে নির্বাচিত করেছেন। তিনিও সভাধিপতি হিসাবে সাধারণ মানুষের পাশাপাশি আদিবাসী মানুষদের উন্নয়নে চেষ্টা করে চলেছেন। কিন্তু এখনও তারা দেখতে পাচ্ছেন সরকারী সুযোগ সুবিধা থাকা সত্ত্বেও পুরনো কুসংস্কার ভুলতে পারছেন না অনেকেই। এমনকি রাজ্য সরকার পড়াশোনার উন্নতির সঙ্গে সঙ্গে সামাজিক যে বিবিধ প্রকল্প গ্রহণ করেছে তা আদিবাসী সম্প্রদায়ের মানুষ গ্রহণ করতে পারছেন না। তাই জেলার প্রায় ১৫০০ আদিবাসী সমাজের মাথা তথা মোড়লদের নিয়ে এই সম্মেলন করা হচ্ছে। কারণ গ্রাম গ্রামাঞ্চলে মোড়লরাই এখনও আদিবাসী সমাজের শেষ কথা বলে অনেকেই বিশ্বাস করেন। এদিন সভাধিপতি জানিয়েছেন, মোড়লদের কাছ থেকে বিভিন্ন সমস্যাগুলি শুনে তা লিপিবদ্ধ করা হচ্ছে। এরপর সেগুলি বিচার বিবেচনা করে সমস্যার সমাধান করবেন। বিশেষত, তিনি এদিন সাফ জানিয়েছেন, কোনেও আদিবাসী ছেলেমেয়ে পড়াশোনা না করলে মোড়লদের বিরুদ্ধেই আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

- Advertisement -

একইভাবে স্কুলছুটের ঘটনা ঘটলে কেন তা ঘটল তারও কৈফিয়ত নেওয়া হবে মোড়লদের কাছ থেকে। সভাধিপতি জানিয়েছেন, সামনেই পঞ্চায়েত ভোট। তাই রাজ্য সরকারের যে সমস্ত উন্নয়ন প্রকল্প রয়েছে তা আদিবাসী মানুষদের কাছে যথাযথ পৌঁছানোর লক্ষ্যেও এই সম্মেলন থেকে বার্তা দেওয়া হবে। এজন্য সরকারী উন্নয়ন প্রকল্প সম্পর্কে একটি পুস্তিকাও তৈরি করা হয়েছে। যা এদিন মোড়লদের হাতে তুলেও দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও কুসংস্কার, ডাইনী প্রথা প্রভৃতি সম্পর্কেও এদিন সম্মেলন থেকে কড়া বার্তা দেওয়া হয়েছে। ঝাড়ফুঁক, তাবিজ কবজের পরিবর্তে রোগ হলে স্বাস্থ্যকেন্দ্র কিংবা হাসপাতালে যাবার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। প্রসঙ্গত, এদিন জেলাশাসক ডক্টর সৌমিত্র মোহনও জানিয়েছেন, আদিবাসীদের পিছিয়ে থাকার অন্যতম কারণ, তাদের কিছু কুসংস্কার এবং অন্ধ ধারণা। মদ খাওয়ার মত কু অভ্যাস থেকে আদিবাসী সমাজকে বেড়িয়ে আসার ডাক দিয়েছেন জেলাশাসক।

Advertisement ---
---
-----