নিজেদের নাক কেটে পরের যাত্রাভঙ্গের লক্ষ্যে বাংলা

অভিষেক কোলে: নকআউটে যেতে হলে সরাসরি জয় ছাড়া অন্য কোনও রাস্তা খোলা নেই বাংলার সামনে৷ পঞ্জাবের বিরুদ্ধে গ্রুপের শেষ রঞ্জি ম্যাচে জয়ের লক্ষ্যেই মাঠে নেমেছিলেন মনোজ তিওয়ারিরা৷ তবে বর্তমান পরিস্থিতিতে যুবরাজদের বিরুদ্ধে বাংলার জয়ের আশা প্রায় নেই বললেই চলে৷ বরং যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের মাঠে শেষ দিনে হঠকারীতা করে বসলে মনোজদের ম্যাচ হেরে বসার সমূহ সম্ভাবনা রয়েছে৷

যদিও ক্রিকেটীয় যুক্তিতে বিচার করলে বাংলা বনাম পঞ্জাব ম্যাচ ড্র হতে চলেছে বলেই ধরে নেওয়া যায়৷ তাই যদি হয় তবে প্রথম ইনিংসে এগিয়ে থাকার সুবাদে পঞ্জাবের ঘরে ঢুকবে তিন পয়েন্ট৷ বাংলাকে সন্তুষ্ট থাকতে হবে স্বান্তনার ১ পয়েন্টে৷ তাতে বাংলার তো এবারের মতো রঞ্জি অভিযানে যবনিকা পড়বেই, পঞ্জাবেরও নকআউটে যাওয়ার যাবতীয় সম্ভাবনা শেষ হয়ে যাবে৷

আরও পড়ুন: যুবরাজকে দ্রুত ফিরিয়েও বাংলার রঞ্জি বিদায় আসন্ন

বাংলার মতো পঞ্জাবও ম্যাচ থেকে পুরো পয়েন্ট তুলে নিতে না পারলে বিদায় নেবে রঞ্জি থেকে৷ মনদীপ সিংদের লক্ষ্যটা অবশ্য আরও একটু কঠিন৷ কেননা, ছ’পয়েন্ট পেলেও তাদের কোয়ার্টারের টিকিট নিশ্চিত হবে না৷ তাকিয়ে থাকতে হবে অন্যদের দিকে৷ যদি বাংলার কাছ থেকে বোনাসসহ সাত পয়েন্ট কেড়ে নিতে পারে পঞ্জাব, তবে পরের রাউন্ডের দরজা খোলা থাকবে তাদের সামনে৷

খাতায়-কলমে সেই সুযোগ এখনও রয়েছে পঞ্জাবের৷ বাংলার থেকে এখনও ৪২ রানে এগিয়ে রয়েছে তারা৷ শেষ দিনে মনোজদের দ্বিতীয় ইনিংস তাড়াতাড়ি গুটিয়ে দিয়ে অন্তত দশ উইকেটে জয় তুলে নিতে পারলেই কেল্লা ফতে৷ যেহেতু নিজেদের রঞ্জি অভিযান এবছরের মতো কার্যত শেষ, তাই বাংলার লক্ষ্য এখন নিজেদের নাক কেটে পরের যাত্রা ভঙ্গ করা৷ দ্বিতীয় ইনিংসে লম্বা ব্যাটিং করে পঞ্জাবের থেকে ম্যাচ দূরে সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার উদ্দেশ্যেই শেষ দিনে মাঠে নামবেন মনোজরা৷

আরও পড়ুন: ব্যাট হাতে নামার আগে মহারাজের সান্নিধ্যে যুবরাজ

বাংলার ১৮৭ রানের জবাবে পঞ্জাব তাদের প্রথম ইনিংস শেষ করে ৪৪৭ রানে৷ প্রথম ইনিংসের নিরিখে ২৬০ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় দফায় ব্যাট করতে নামা বাংলা তৃতীয় দিনের শেষে ২ উইকেটের বিনিময়ে ২১৮ রাম তুলেছে৷ অভিষেক রামন ৭ ও সুদীপ চট্টোপাধ্যায় ১৮ রান করে আউট হয়েছেন৷ চলতি রঞ্জি ট্রফিতে নিজের তৃতীয় শতরান পূর্ণ করে অপরাজিত রয়েছেন অভিমন্যু ঈশ্বরণ৷ তিনি ১১টি বাউন্ডারির সাহায্যে ১৫৭ বলে ১০০ রান করেছেন৷

ব্যক্তিগত শতরানের দোরগোড়ায় দাঁড়িয়ে রয়েছেন দলনায়ক মনোজ তিওয়ারি৷ দিনের শেষে তিনি নট-আউট রয়েছেন ৯০ রান করে৷ ১৪৬ বলের ইনিংসে মনোজ ৯টি চার ও ১টি ছক্কা মেরেছেন৷ শেষ দিনে খামতি মিটিয়ে ম্যাচ ড্র’য়ের দিকে টেনে নিয়ে যাওয়াই এখন প্রধান লক্ষ্য তিওয়ারিদের৷

আরও পড়ুন: যুবরাজদের বিরুদ্ধে প্রথম দিনেই বেহাল বাংলা

বাংলার মেন্টর অরুণ লালের কথায় তেমনই ইঙ্গিত মিলল৷ লালজি স্পষ্ট জানান, শেষ দিনের শেষ বল পর্যন্ত ব্যাট করাই হবে আমাদের লক্ষ্য৷ পঞ্জাব যদি ঠিক সময়ে ইনিংস ডিক্লেয়ার করত, তবে হার-জিতের সম্ভাবনা থাকত৷ ওরাই ধীর ও লম্বা ব্যাটিং করে ম্যাচটা শেষ করে দিল৷ যখন দু’দলেরই ম্যাচ জেতা জরুরি, তখন শেষ দিন পর্যন্ত ম্যাচ বাঁচিয়ে রাখা দরকার ছিল৷’

পঞ্জাবের হয়ে প্রথম ইনিংসে অনবদ্য শতরান করা আনমোলপ্রীত সিং (১২৬) অবশ্য এখনও আশাবাদী ম্যাচ জয়ের বিষয়ে৷ তাঁর ধারণা, শেষদিনে বাংলা একটা জয়ের লক্ষ্য নিশ্চিত ঝুলিয়ে দেবে পঞ্জাবের সামনে৷ তাহলে তাঁরা সেটা তাড়া করবে দ্বিধাবোধ করবে না৷

---- -----