‘গুজরাতের ফলে একের পর এক উইকেট পড়তে শুরু করবে তৃণমূলে’

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বিজেপির বঙ্গ ব্রিগেডকে প্রায়ই ‘সংগঠনহীন’ বলে খোঁচা দেন বিরোধী রাজনৈতিক দলের নেতারা৷ তবে পাল্টাও দেন বিজেপির রাজ্য নেতারা৷ সভা-সমাবেশের ছবি দেখিয়ে দাবি করেন, কীভাবে হু-হু করে গেরুয়া শিবিরের প্রতি পশ্চিমবঙ্গের মানুষ ঝুঁকছেন৷

পদ্ম-পার্টির সংগঠন নিয়ে যতই বিতর্ক থাকুক, সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচারে যদিও তারা রীতিমতো টক্কর দেয় তারা৷ নিয়মিত দলের ফেসবুক পেজে বিভিন্ন ইস্যুতে পোস্ট করা হয়৷ যেমন করা হল শনিবার সন্ধ্যায়৷ কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে দুই নেতার দুই বক্তব্য তুলে ধরা হল সেখানে৷

আরও পড়ুন: গাইঘাটায় মুকুলের সভায় জনজোয়ারে উচ্ছ্বসিত বিজেপি

- Advertisement -

সেই পোস্টটির একটিতে রয়েছে সদ্য বিজেপিতে যোগ দেওয়া মুকুল রায়ের বক্তব্য৷ আর অন্যটিতে তুলে ধরা হয়েছে বিজেপির রাজ্যনেতা সায়ন্তন বসুর বক্তব্য৷ দু’জনেই জাতীয় রাজনীতির প্রেক্ষাপটে বঙ্গে বিজেপির আগামীর সম্ভাবনার কথা তুলে ধরেছেন৷

গোটা দেশে বিজেপির যেভাবে বিকাশ হচ্ছে, তাতে বাংলা তার বাইরে থাকতে পারে না বলেই মনে করছেন মুকুল রায়৷ সেকথাই বিজেপির ফেসবুক পেজের একটি পোস্টে উল্লেখ করা হয়েছে৷ একই সঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেসের একদা নম্বর টুকে উদ্ধৃত করে লেখা হয়েছে, ‘‘২০২১-এর পর বাংলায় ক্ষমতায় আসবে বিজেপিই৷’’ তবে সায়ন্তন বসুর যে মন্তব্য ওই পেজে পোস্ট করা হয়েছে, তা যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ৷ কারণ, সেখানে বিজেপির ওই নেতা দাবি করেছেন, গুজরাতে বিধানসভা ভোটের ফল প্রকাশ হলেই ধস নামতে শুরু করবে বাংলায়৷ তিনি বলেছেন, ‘‘গুজরাত নির্বাচনের ফল বেরতে দিন৷ সকাল থেকে রেজাল্ট বের হবে৷ বিকেল থেকে তৃণমূলের উইকেট পড়া শুরু হবে৷’’

আরও পড়ুন: মমতার সফরের পরই বাংলায় নয়া পার্টি অফিস বিজেপি-র

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের দাবি, বিজেপির ওই নেতা একটুও বাড়িয়ে বলেননি৷ কারণ, বিজেপি এ রাজ্যে রোজই শক্তি বাড়াচ্ছে৷ বহু মানুষ যাঁরা এই মুহূর্তে তৃণমূলের উপর ক্ষিপ্ত, তাঁরা ক্রমশ বিজেপির দিকেই ঝুঁকছেন৷ তার উপর মুকুল রায় বিজেপিতে চলে আসার পর আরও অনেক হেভিওয়েট নেতাই গেরুয়া শিবিরে নাম লেখাতে আগ্রহী বলে একাধিক সূত্র থেকে জানা গিয়েছে৷ কিন্তু সকলেই জল মাপছেন৷ সবাই দেখতে চাইছেন গুজরাতে ভোটের ফল কী হয়? আর সেই কথাই কার্যত সায়ন্তন বসুর কথায় উঠে এসেছে বলে রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের দাবি৷

Advertisement
---