সাংবাদিক বৈঠকে কেন পাশে ছিলেন না মুকুলের ‘ডানহাত’?

দেবযানী সরকার, কলকাতা: তৃণমূল ছাত্র সংগঠনের অধিকাংশ নেতার মুকুল রায়ের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা আছে৷ মুকুল বিজেপিতে নাম লেখালে তৃণমূল ছাত্র সংগঠনের অনেক নেতাও তাঁর পথ অনুসরণ করবে৷রাজনৈতিক মহলের একাংশ এমনটাই মনে করছে৷ কিন্তু, এখানেও উঠছে প্রশ্ন৷ সত্যি কত জন ছাত্রনেতা মুকুলের পথ অনুসরণ করতে পারেন? তৃণমূল ছাত্রনেতারাও কি জল মাপছেন?

রাজনৈতিক প্রচার থেকে সাংবাদিক সম্মেলন, মন্দিরে পুজো দেওয়া থেকে পদযাত্রায় হাঁটা, সবসময়ই মুকুল রায়ের ডানদিকে দেখা যায় ছাত্রনেতা সুজিত সামকে৷ তিনিই মুকুলের ছাত্র সংগঠনের অনুগামীদের সামলান৷ মুকুল বিজেপিতে গেলে তিনিও যে বড় দায়িত্ব পাবেন সেটাও অনেকে বিশ্বাস করতে শুরু করেছিল৷ কিন্তু বুধবার সাংবাদিক সম্মেলনের সময় তাঁর অনুপস্থিতিতে প্রশ্ন উঠল তৃণমূলের ছাত্র সংগঠন মুকুলের সঙ্গে আছে কিনা? শুধু তাই নয়, মুকুলের উপর ভরসা রেখে তাঁর অনুগামীরা সবাই ঘাসফুলের জার্সি বদল করবে নাকি তাঁরাও অন্যান্য নেতাদের মতো জল মাপছে, প্রশ্ন উঠছে৷

এই মুহূর্তে মুকুল রায়ের পাশে কে বা কারা থাকছে তা সবসময়ে নজরে থাকছে৷ আজ, মুকুলের পাশে তার ছায়সঙ্গী ছাত্রনেতা সুজিতকে না দেখে অনেকেই অবাক হয়েছে৷ তৃণমূলের অন্দরের খবর, মুকুল ঘনিষ্ট হলেও অভিষেক ও সুব্রত বক্সির সঙ্গে সুজিতের ভালো সম্পর্ক৷ এর আগে অভিষেকের সঙ্গে মিছিলে তাঁকে পা মেলাতেও দেখা গিয়েছে৷ তৃণমূলের একটা অংশ মনে করছে, মুকুলের সঙ্গে না গেলে দল সুজিতকে ছাত্র সংসদের দায়িত্ব দিতে পারে৷ কারণ এই মূহূর্তে তৃণমূল ছাত্র পরিষদের সভাপতি জয়া দত্তের বিরুদ্ধে বিস্তর অভিযোগ রয়েছে৷ তাঁকে সরিয়ে সুজিতকে বড় পুরস্কার দিতে পারে দল৷ যদিও এখনও কোনও সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত হয়নি৷

- Advertisement -

মুকুল রায় তৃণমূলের সঙ্গে সব সম্পর্ক ত্যাগ করলেও তাঁর পুত্র শুভ্রাংশু কিন্তু তৃণমূলেই থাকবেন বলে জানিয়েছেন৷ তৃণমূলের কেউ কেউ বলছেন, শুভ্রাংশুর পথেই হাঁটতে পারে মুকুল শিষ্য সুজিত৷ তবে এদিন দিল্লিতে সুজিতের অনুপস্থিতি নিয়ে তৃণমূলের অন্য একটা অংশ মনে করছে যে এটা হয়তো মুকুল রায়েরই কোনও কৌশল৷ কলকাতার পরিস্থিতির উপর নজর রাখতেই সুজিতকে দিল্লি নিয়ে যাননি তাঁর ‘মুকুল দা’৷

সুজিত এককথায় মুকুল রায়ের ডানহাত৷ কিন্তু মুকুল রায়ের জীবনের একটা ঐতিহাসিক দিনেই ‘আদর্শ নেতার’ কাছ ছাড়া রইলেন তিনি৷ বুধবার সাংবাদিক সম্মেলনের সময় মুকুলের এই ছায়াসঙ্গীর অনুপস্থিতিতে রহস্য বাড়ল৷ ঠিক একইভাবেই মুকুল ঘনিষ্ঠ বেশ কিছু তৃণমূল ছাত্রনেতাকে হঠাৎই কোন রাজনৈতিক মঞ্চ বা তৃণমূল ভবনে দেখা যাচ্ছে না৷ সত্যি কি তাহলে, ছাত্রনেতারাও রাজনৈতিক পালাবদলের সন্ধিক্ষণে সবকিছু বুঝেশুনে সিদ্ধান্ত নেবার চেষ্টা করছেন?

Advertisement
---