দিনের পর দিন হোমে নাবালকদের উপর চলেছে যৌন নির্যাতন

পাটনা: মুজফফরপুর হোমের ধর্ষণ কাণ্ডের রেশ এখনও মেলায়নি৷ এরই মধ্যে সামনে এল আরেক ভয়াবহ চিত্র৷ এবারও ঘটনাস্থল বিহার৷ জুভেনাইল হোমে তিন নাবালককে যৌন নির্যাতনের অভিযোগে ফের একবার বিতর্ক দানা বেঁধেছে৷

ইতিমধ্যেই সাতজন সহ বন্দীর বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের হয়েছে৷ ভোজপুরের পুলিশ সুপার আকাশ কুমার জানিয়েছেন এফআইআর দায়ের হয়েছে ওই সাতজনের বিরুদ্ধে৷ এদের বিরুদ্ধেই ওই নাবালকদের যৌন হেনস্থা ও নির্যাতনের অভিযোগ রয়েছে বলে খবর৷

আকাশ কুমার জানান নির্যাতিত তিন নাবালকের মধ্যে দুজন আদালতে তাদের পরিবারকে সব জানায়, তারপরেই পুলিশের দ্বারস্থ হয় তাদের পরিবার৷ ঘটনা প্রকাশ্যে আসে৷ এই তিন নাবালকের বিরুদ্ধে খুনের মামলায় জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে৷

- Advertisement -

ওই দুই নাবালক জানায়, তাদের প্রতিদিন মারধর করা হত, চলত যৌন হেনস্থা৷ ওই সাত জনের বিরুদ্ধেই অভিযোগ ওঠে৷ নির্যাতিতদের শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ৷

তাদের শারীরিক পরীক্ষা করা হবে৷ পুলিশ সুপার জানিয়েছেন মেডিক্যাল পরীক্ষার রিপোর্ট আসার পরেই কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে৷

আরা জেলার ধারহারা এলাকার এই জুভেনাইল হোমে ভোজপুর, কাইমুর ও সংলগ্ন এলাকার নাবালক অপরাধীদের রাখা হয়৷ ইতিমধ্যেই অভিযুক্তদের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে৷ দেখানো হয়েছে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে৷

পুলিশ সুপার জানিয়েছেন এফআইআর দায়ের করার কথা জুভেনাইল হোমে জানানোর সাথে সাথে অভিযুক্তরা ক্ষোভে ফেটে পড়ে৷ হোম চত্ত্বরে ভাঙচুর চালাতে থাকে বলে অভিযোগ৷ এরপর হোমের কর্মীরা তাদের কোনওক্রমে আটকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন৷

এর আগে, জুলাই মাসেই প্রকাশ্যে আসে বিহারের মুজফফরপুর হোমের ভয়াবহ চিত্র৷ ৪০ জন নাবালিকাকে যৌন হয়রানির শিকার হতে হয়৷ জানা যায়, নাবালিকাদের নগ্ন অবস্থায় শুতে বাধ্য করতেন শিক্ষিকা। এক নাবালিকাকে খুন করা হয়েছে বলেও অভিযোগ। দেহ খুঁজতে তল্লাশি শুরু করে পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে খবর, অভিযুক্ত শিক্ষিকা কিরণ নিজেও নগ্ন হয়ে ঘুমোতেন, পাশে থাকত ৩-৪ জন নাবালিকা। উদ্ধারের পর এক নাবালিকা জানিয়েছে, মৃত ছাত্রীদের দেহ মাটির তলায় পুঁতে দেওয়া হত। এরপরই নতুন করে তল্লাশি শুরু করেছে পুলিশ। একটি এনজিও সেই তথ্য জানতে পেরে প্রকাশ্যে আনে পুরো বিষয়টি। এখনও পর্যন্ত এই ঘটনায় ১০ জন সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে। নাবালিকাদের সবাইকে উদ্ধার করে নিয়ে যাওয়া হয়েছে অন্য জায়গায়।

Advertisement ---
---
-----