গানের শিক্ষকের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার, বর্ধমান: গানের ক্লাসের ছাত্রীদের কুপ্রস্তাব দেওয়া এমনকি তাঁদেরকে শ্লীলতাহানি করারও অভিযোগ উঠল বর্ধমান শহরের এক সঙ্গীত শিক্ষক কল্যাণ বন্দোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে তীব্র আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে শহর জুড়ে।

এ দিন ছাত্রীরা অভিযোগ করেছেন, শুক্রবার সন্ধ্যে সাড়ে ছটা নাগাদ তাঁরা বর্ধমান সদর থানায় ওই সঙ্গীত শিক্ষক কল্যাণ বন্দোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করতে যান। কিন্তু রীতিমত উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবেই কর্তব্যরত থানার অফিসার অভিযোগ নিতে কার্যত অস্বীকার করতে থাকেন। একইসঙ্গে রাত্রি প্রায় ১টা পর্যন্ত তাঁদের থানায় বসিয়ে রাখাও হয়। প্রায় ছয় বার অভিযোগ লেখানো হয়৷ কিন্তু তা ত্রুটি থাকার অজুহাতে বাতিল করানো হয়৷ এই ঘটনায় রীতিমত ক্ষুব্ধ খোদ বর্ধমান পুরসভার পুরপ্রধান ডা. স্বরূপ দত্তও।

এর পরই শনিবার সকালে বর্ধমান থানায় সঙ্গীত শিক্ষক কল্যাণ বন্দোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ হলেও পুলিশি ভূমিকা নিয়েই রীতিমত সরব হয়েছেন ছাত্রী থেকে অভিভাবকরা। তাই কার্যত শনিবার তিনিই নবাগত পুলিশ সুপার ভাস্কর মুখার্জ্জীকে এই বিষয়টি জানায়৷ এরপরই পুলিশ সুপারের নির্দেশে থানার কর্তব্যরত যে অফিসার অভিযোগ নিতে অস্বীকার করেছিলেন তাঁকে এদিন সকালেই শীলমোহর দেওয়া হয়।

- Advertisement -

বর্ধমান হরিসভা হিন্দু বালিকা বিদ্যালয়ের ছাত্রীরা জানিয়েছেন, বেশ কয়েক বছর ধরে কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের কলাবতী মিউজিক একাডেমিতে গান শিখতে যান অনেক ছাত্রীই। বর্তমানে শাসকদলের ছত্রছায়ায় থাকায় বর্ধমান শহরের বড়বড় প্রোগ্রামে কল্যাণবাবুরই ডাক পড়ে। তাঁর অভিযোগ, মোবাইলে ম্যাসেজ করে তাঁকে কুপ্রস্তাব দেওয়া হত। দিন কয়েক আগে তাঁকে গানের স্কুলে একা পেয়ে শ্লীলতাহানির চেষ্টা করেন ওই শিক্ষক। কোন রকমে সে পালিয়ে যায়। এরপর গোটা বিষয়টি ছাত্রীটি তাঁর মাকে জানায়।

উল্লেখ্য, কল্যাণবাবু হরিসভা হিন্দু বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের গানের অস্থায়ী শিক্ষক। দিন দুয়েক আগে অভিযোগকারিণী স্কুলের প্রধান শিক্ষিকার কাছে প্রথমে লিখিতভাবে বিষয়টি জানায়। শুক্রবার বর্ধমান পুরসভার পুরপতি ডা. স্বরূপ দত্তের কাছেও যায় ছাত্রীরা এই অভিযোগ জানাতে। এরপর শনিবার বর্ধমান থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয় শিক্ষক কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে।

যদিও কল্যাণবাবু জানিয়েছেন, এই বিষয়ে এখনই তিনি কিছু বলবেন না৷ তিনি তাঁর আইনজীবীর সঙ্গে কথা বলছেন। যা বলার তিনি পরে বলবেন। কিছুদিন আগেই মিঠাপুকুরেও এক গানের শিক্ষকের বিরুদ্ধে এই ধরণের অভিযোগ উঠেছিল৷ তাঁকে পুলিশ গ্রেফতারও করে। পরপর সঙ্গীত শিক্ষকদের বিরুদ্ধেই ছাত্রীদের প্রতি অশালীন আচরণ করার এই ঘটনায় আতঙ্ক ছড়িয়েছে অভিভাবক মহলে।

Advertisement ---
---
-----