ঢাকা: রাষ্ট্রপতির আবাসস্থল বা প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন থেকে কোনওরকম নির্বাচনী কর্মকাণ্ড বরদাস্ত করা হবে না৷ এরকম কিছু হলে সেই মুহূর্তেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে৷ এমনই জানিয়ে দিল বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন৷

মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার সরকারি বাসভবন গণভবনে দেড় শতাধিক অবসরপ্রাপ্ত সামরিক কর্মকর্তাদের নিয়ে বৈঠক করেন। বিএনপি একে নির্বাচনী আচরণবিধির লঙ্ঘন বলে অভিযোগ করছে। এর পরেই শুক্রবার নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম জানিয়ে দিলেন,বঙ্গভবন বা গণভবনে নির্বাচনী প্রচারণা চালালে আমরা অবশ্যই ব্যবস্থা নেব৷

তিনি বলেছেন, অবসর প্রাপ্ত সেনা কর্তারা এসেছিলেন তাঁরা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে তাঁকে সমর্থন করবেন বলে জানিয়েছেন৷ আমি ব্যক্তিগতভাবে যতটুকু আচরণবিধিমালা বুঝি, আমার কাছে মনে হচ্ছে না যে, এটা কোনোভাবে আচরণবিধি লঙ্ঘন হতে পারে। তবে বঙ্গভবন বা গণভবনে নির্বাচনী প্রচার চালালে অবশ্যই আচরণবিধি লঙ্ঘন হবে এবং সেক্ষেত্রে ব্যবস্থা নেয়া হবে। প্রধানমন্ত্রী তো সরকারি বাসভবন ছেড়ে যেতে পারবেন না। কারও সঙ্গে যদি দেখা করতে চান, তাহলে কোথায় দেখাটা করবেন?

তবে অন্যতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি বিষয়টিকে নির্বাচনী আচরণবিধির নিরিখে সমালোচনা করেছে৷

----
--