ভোট দেওয়া আমার গণতান্ত্রিক অধিকার: বিজয় মালিয়া

লন্ডন: ভোট দিতে দেশে আসতে চাইছেন বিজয় মালিয়া? আগামী ১২মে মালিয়ার রাজ্য কর্ণাটকের বিধানসভা নির্বাচন৷ সেই প্রসঙ্গে শুক্রবার এই লিকার ব্যারন জানান, ‘‘ভোট দেওয়া আমার গণতান্ত্রিক অধিকার৷’’

এরপরেই জল্পনা ছড়ায় তাহলে কি ভোট দিতে দেশে আসতে চাইছেন মালিয়া? যদিও সেই সম্ভাবনায় নিজেই জল ঢেলে দেন৷ বলেন, ‘‘আমি এখন কোথাও যেতে পারব না৷’’ প্রায় ন’হাজার কোটি টাকা ঋণের বোঝা নিয়ে দেশ ছেড়ে ব্রিটেনে পাড়ি দিয়েছেন মালিয়া৷ ঝণখেলাপীর জেরে রাজ্যসভা থেকে বহিস্কার করা হয় তাঁকে৷

আরও পড়ুন: হঠাৎ রাহুলকে ফোন প্রধানমন্ত্রী মোদীর

- Advertisement DFP -

২০১০ সালে নির্দল প্রার্থী হিসাবে সংসদীয় রাজনীতিতে পা রাখেন তিনি৷ এই কণাটক থেকেই রাজ্যসভার সাংসদ হন৷ বহিস্কৃত সাংসদ জানান, এখন আর আগের মতো দেশের রাজনীতি নিয়ে খবর রাখার অবকাশ পান না৷ মালিয়া বলেন, ‘‘আইনি লড়াইয়ে জড়িয়ে পড়ার পর থেকে আগের মতো দেশের রাজনীতি নিয়ে খোঁজখবর রাখতে পারি না৷’’ এরপরই তাঁকে প্রশ্ন করা হয় কর্ণাটক বিধানসভা নির্বাচনে ভোট দিতে যাবেন কিনা? জবাবে মালিয়া জানান, ‘‘ভোট দেওয়া আমার গণতান্ত্রিক অধিকারের মধ্যে পড়ে৷ কিন্তু এখন আমি এখানে (লন্ডনে) আছি৷ অন্যত্র কোথাও যেতে পারব না৷’’

পলাতক বিজয় মালিয়াকে ভারতের হাতে তুলে দিতে লন্ডনে শুরু হয়েছে আইনি লড়াই৷ এদিন ওয়েস্টমিনস্টার কোর্টে সিবিআই কিছু ডকুমেন্ট তুলে ধরে৷ সেখানে বলা হয়েছে আর্থার জেলে মালিয়াকে কী কী সুবিধা দিতে তৈরি ভারত সরকার৷ কোর্ট আগামী ১১ জুলাই এই মামলার রায় দেবে৷

আরও পড়ুন: চিনে ভারতের মুখ হতে চলেছেন এই বলি অভিনেতা?

বিজয় মালিকাকে ভারতে হস্তান্তর সংক্রান্ত মামলাটির গতি আগের থেকে অনেক বেড়েছে বলে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার গোয়েন্দারা৷ তাঁরা আশাবাদী খুব তাড়াতাড়ি এই মামলার নিষ্পত্তি হতে চলেছে৷ গত বছর এপ্রিল মাসে মালিয়া স্কটল্যান্ড ইর্য়াডের হাতে ধরা পড়ার পর থেকে মালিয়া জামিনেই আছেন৷ চলতি বছর জানুয়ারি মাসে সেই জামিনের মেয়াদ আরও তিনমাস বাড়িয়ে দেয় কোর্ট৷

Advertisement
----
-----