পাক হকি তারকার আর্জি শুনল চেন্নাই

চেন্নাই: পাক হকি গোলকিপার মনসুর আহমেদকে চিকিৎসার প্রতিশ্রুতি ভারতের৷ তাঁর আর্জিতে সাড়া দিল চেন্নাই হকি অ্যাসোসিয়েশন৷ চেন্নাইয়ের এক খ্যাতনামা হার্ট সার্জেনও কিংবদন্তি পাক খেলোয়াড়ের চিকিৎসকরা জন্য এগিয়ে এলেন৷

অসুস্থ পাক নাগরিকরা ভারতে চিকিৎসা করতে আসতে চাইলে তাদের ফেরায় না ভারত৷ এর নিদর্শন আগেও রয়েছে৷ আর তিনি যদি হন খেলোয়াড় তাহলে তার থেকে মুখ ফিরিয়ে থাকার কথাই নয়! কয়েকদিন আগেই এক ভিডিও বার্তায় তাঁর চিকিৎসার জন্য ভারত সরকারের কাছে আর্জি জানিয়েছিলেন৷

পাক হকি তারকার আবেদনে সাড়া দিয়ে পাঁশে দাঁড়ানো আশ্বাস চেন্নই হকি অ্যাসোসিয়েশনের৷ চেন্নাইয়ের হার্ট সার্জন ডঃ কেআর বালাকৃষ্ণণ জানিয়েছেন, “মনসুর আহমেদের চিকিৎসকেরা মেডিক্যাল রেকর্ড পাঠিয়েছেন৷ আমাকে তাঁরা সাহায্য করতে অনুরোধ করেন৷ বিষয়টা আমরা দেখছি৷” যদিও ডঃ বালাকৃষ্ণণ এখন রয়েছেন প্যালেস্টাইনে৷ সেখানে তিনি শিশুদের হৃদপিণ্ডের সমস্যা নিয়ে চিকিৎসকদের সাহায্য করতে গিয়েছেন৷

- Advertisement -

পাকিস্তানের প্রাক্তন হকি তারকার চিকিৎসা চলছে করাচির জিন্নাহ পোস্ট গ্রাজুয়েট মেডিকাল সেন্টারে৷ ডঃ চৌধুরি পারভেজ এই্ মুহূর্তে করাচিতে মনসুর আহমেদের চিকিৎসা করছেন৷ তিনিই প্রাক্তন হকি তারকাকে হার্ট ট্রান্সপ্লান্ট করানোর পরামর্শ দেন এবং আমেরিকা ও ভারত এই দুই দেশের যে কোনও একটি দেশের হাসপাতালে স্থানান্তরিত করতে লিখে দেন৷

১৯৯০ সালে মনসুর আহমেদ পাকিস্তানের হকি টিমের ক্যাপ্টেন ছিলেন৷ তিনবার অলিম্পিকে পাকিস্তানের প্রতিনিধিত্ব করেন তিনি৷ তাঁর দল ১৯৮৯ এ ইন্দিরা গান্ধি কাপ জেতে৷ আহমেদ ১৯৮৬ থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত ৩৩৮টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছেন৷ সিডনিতে ১৯৯৪ ওয়ার্ল্ড কাপ জেতে তাঁর দল৷ ১৯৯২ অলিম্পিকে ব্রোঞ্জ জেতেন৷ তিনি ১৯৯৬ আটলান্টা অলিম্পিকে পাকিস্তানের জাতীয় পতাকা বহন করেন মনসুর৷ ১৯৯৪ সালে ইন্টারন্যাশনাল হকি ফেডারেশন তাঁকে বেস্ট গোলকিপারের সম্মান দেয়৷ আজ তাঁর বয়স ৪৯৷

একসময়ে পাকিস্তানের হয়ে হকি মাঠ কাঁপানো মনসুরের হৃদপিণ্ড কাজ করা বন্ধ করে দিয়েছে৷ পাকিস্তানকে বিশ্বকাপ জেতানো এই হকি তারকার হার্টে সমস্যা শুরু হওয়ার পর তাঁর বুকে পেসমেকার বসানো হয়৷ সেই পেসমেকারেও সমস্যা দেখা দেয়৷ চিকিৎসকরা বলেন হার্ট বদল করতে হবে৷ করাচির বাসিন্দা এই হকি তারকা যিনি একসময় ধীরজ পিল্লাই এবং পরগত সিংয়ের বিপক্ষে খেলেছেন আজ মেডিক্যাল ভিসার জন্য আর্তি জানিয়েছেন ভারতের কাছে৷ বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের কাছে তাঁর করুণ নিবেদন তাঁকে যেন চিকিৎসার জন্য দ্রুত ভিসা দেওয়া হয়৷ ২০০৮ এর ২৬/১১ মুম্বই হামলার পর থেকেই পাকিস্তানের সঙ্গে ভারতের সম্পর্ক খারাপ হয়৷ যদিও এর পরেও ভারত সরকার বেশ কিছু পাকিস্তানি নাগরিককে চিকিৎসার জন্য মেডিক্যাল ভিসা দিয়েছে৷

আহমেদের আর্তি শুনে ভারত সরকার ভিসা দিলেও তাঁকে অপেক্ষা করতে হবে বেশ কিছু দিন৷ প্রায় চার থেকে ছয় মাস লাগতে পারে এই বিদেশি রোগীর নতুন হৃদপিণ্ড পেতে৷ কারণ নিয়ম অনুযায়ী অন্য দেশের রোগীকে হৃদপিণ্ড প্রতিস্থাপনের আগে দেশের কোনও রোগী হৃদপিণ্ড প্রতিস্থাপনের তালিকায় পড়ে থাকতে পারবে না৷ চিকিৎসার নতুন নিয়ম অনুযায়ী কোনও বিদেশি রোগীর জন্য দেশের অসুস্থ রোগীকে হৃদপিণ্ড প্রতিস্থাপন না-করিয়ে ফেলে রাখা যাবে না৷ সুতরাং ইতিমধ্যেই দেশের হৃদপিণ্ড প্রতিস্থাপনের তালিকায় যাদের নাম রয়েছে তাদের সার্জারির পরেই পাক হকি তারকার হৃদপিণ্ড প্রতিস্থাপন সম্ভব৷

 মনসুরের সেই ভিডিও বার্তাটি মন ছুঁয়ে যাওয়ার মত৷ পাক হকি তারকা বলেছেন, “ভারতের বিরুদ্ধে হকি ম্যাচে বেশ কয়েকবার আমি ভারতীয়দের হৃদয় ভেঙেছি৷ বেশ কয়েকবার ভারতের থেকে জয় ছিনিয়ে নিয়ে নিজের দেশ পাকিস্তানকে জিতিয়েছি৷ কিন্তু সেটা খেলা ছিল৷ খেলার অঙ্গ ছিল৷ আজ আমার হৃদপিণ্ডের সার্জারির জন্য ভারতের সাহায্য দরকার৷”

ভারত সরকারের কাছে সেই মর্মস্পর্শী আপিলে মনসুর বলেছেন মেডিক্যাল ভিসা তাঁর জীবন বাঁচাতে পারে৷ তিনি এও বলেন “মানবতাই রয়েছে সবার উপরে৷ ভিসা পেলে আমি ভারতের কাছে কৃতজ্ঞ থাকব৷” এছাড়াও তাঁর ওই ভিডিও বার্তায় তিনি বলেন “দুই দেশের সম্পর্ক খুব খারাপ কিন্তু খেলার মধ্যে দিয়ে আগেও বহুবার এই সম্পর্ক ঠিক হয়েছে, এবারও এরকমটাই হওয়া উচিত৷”

Advertisement ---
---
-----