মুম্বই : অভিষেকের জন্য ভালোবেসে রান্না করে দিলেন ঐশ্বর্য৷ আর তাতে কিনা নাক শিঁটকালেন তিনি? অবশ্য পুরোপুরি তাঁকে দোষ দেওয়াও চলে না৷ ব্রকোলি খাবারটাই এমন যে কেউ চাইলেও আয়েশ করে খেতে পারবে না৷

অভিষেক বচ্চন সে সব অভিনেতার মধ্যে পড়েন যাঁরা সিক্স প্যাক অ্যাবস, ট্রাইসেপ, বাইসেপের ধার ধারেন না৷ নিজ গুণে, অভিনয় দক্ষতায় দর্শককে মুগ্ধ করতে জানেন৷ সিক্স প্যাক বানাতে নারাজ মানে এই নয় যে হেলথি থাকা পছন্দ করেন না৷ মোটামুটি কড়া ডায়েটই ফোলো করেন৷ কিন্তু সেই ডায়েটে একটা জিনিস ঢুকলে তাঁর ঘোর আপত্তি৷ সেটা হল ব্রকোলি৷

Advertisement

এই সবজিটা দু’চক্ষে সহ্য করতে পারেন না অভিনেতা৷ তাই জন্যই নিজের ট্যুইটার হ্যান্ডেলে একটি ব্রকোলির ছবি পোস্ট করে লিখেছিলেন তিনি এই সবজিটাকে কতটা অপছন্দ করেন৷

সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করাটাই হল কাল৷ তাঁর স্ত্রী ট্যুইটারে নেই তো কি হয়েছে৷ স্বামীর সোশ্যাল মিডিয়ার আপডেট তিনি ভালই রাখেন৷ অভিষেকের ব্রকোলির ট্যুইট ঐশ্বর্যের নজরে পড়তেই ২৪ ঘন্টার মধ্যে ব্রকোলি স্যালাড তুলে ধড়লেন হাসবেন্ডের মুখের সামনে৷ স্ত্রী ভালোবেসে স্যালাড বানিয়ে দিয়েছেন, সেটা না খেলে কি আর চলে? সবজিটা যতই অপছন্দ হোক, হেলথি ডায়েটে থাকতে গেলে এটা মাস্ট৷ তবে অভিষেকের ট্যুইটের পরের দিনই ব্রকোলি স্যালাড বানিয়ে দেওয়া নিছকই ঠাট্টা৷ সেই স্যালাডের ছবি তুলে পোস্ট করে অভিনেতা লিখেছেন, “আমার মিসেসের তার মানে আগের পোস্টটা নজরে পড়েছে৷”

ইতিমধ্যেই ঐশ্বর্যের স্যালাড ভাইরাল হয়ে পড়েছে নেটদুনিয়ায়৷ প্রশংসায় ভরছে কমেন্টবক্স৷ অন্যদিকে অভিষেকের ট্যুইটে রিপ্লাই করেছেন দীপিকা, প্রতীম ডি গুপ্ত, সোফি চৌধুরী৷ তাঁরা অভিষেককে সাহস জুগিয়ে বলেছেন ব্রকোলি শরীরের জন্য উপকারি, নাক শিঁটকিয়ে লাভ নেই৷ এমনকি দীপিকার তো ব্রকোলি রীতিমত পছন্দের খাবার৷

----
--