অ্যাশে মাতল কান

তিনি যেন এক রূপকথার রাজকুমারী, নেমে এলেন মাটিতে! কানের রেড কার্পেটে পা পড়তেই রাজকুমারীর চারপাশে ক্যামেরার ফ্ল্যাশ৷ আলোর ঝলকানিতে বাতাবরণে এক ম্যাজিকাল ছোঁয়া৷

আর রাজকুমারী? এ তো যে সে রাজকুমারী নয়৷ বচ্চন পরিবারের রাজকুমারী, ঐশ্বর্য্য৷নামেই তাঁর রূপের বর্ণণা৷চারচাকা থেকে নামতেই বলি ডিভাকে সামলাতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন বেশ কয়েকজন৷তাঁর যেন সম্মোহনের সব মন্ত্র জানা, দর্শকেরা শুধু দেখতে থাকলেন, আর উনি এলেন, আর জয় করলেন৷হ্যাঁ ঠিক এমনটাই ঘটল সেইদিন৷

দুবাইয়ের ফিলিপিনো ফ্যাশন ডিজাইনার মাইকেল সিনকোর তৈরি হালকা নীল রঙের গাউনে হাঁটলেন অ্যাশ৷তাঁকে রূপকথার সিনড্রেলা সঙ্গেও তুলনা করলেও ভুল বলা হবে না৷ফটোগ্রাফারদের দাবিও ফেরালেন না তিনি, রেড কার্পেটে ফটোশ্যুটও চলল অনেকক্ষণই৷

- Advertisement -

কে বলবে ৪৪এ পা রাখতে চলেছেন এই বছর৷তাঁর এই রূপের বহর দেখে একে একে মুখ খুললেন নামজাদারা৷‘‘ওকে অনবদ্য দেখতে লাগছিল। ফ্যাশন দুনিয়ায় যাকে বলা যায় এক অন্যরকম ফ্রেশ।’’ বললেন মনীশ মালহোত্রা৷ডিজাইনার রীতু বেরির বললেন ‘‘ঐশ্বর্যার লুকটা বেশ ড্রামাটিক। একমাত্র ওই এরকম একটি ড্রেস ক্যারি করতে পারে।’’

‘‘ঐশ্বর্যাকে আসাধারণ দেখতে লাগছিল। ওর পোশাকের রঙটা এই গরমের জন্য খুব ভাল। আর ওর মেকআপ, হেয়ার পুরোটাই জাস্ট পারফেক্ট।’’ বললেন ডিজাউনার নিখিল মেহেরা৷

এই নিয়ে ১৬ বার কান ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে পা রাখলেন ঐশ্বর্য্য বচ্চন৷তবে অভিনেত্রী হিসেবে নয়, জনপ্রিয় এক কসমেটিক ব্র্যান্ডের মডেল হয়ে কান ফিল্ম ফেস্টিভাল তাঁর এবারের যোগ দান।

প্রথম দিনে তিনি পরেছিলেন সবুজ রঙের একটি লেয়ার ড্রেস। দ্বিতীয় দিনে ছিল ঘিয়ে রঙের এমব্রডারি করা একটি গাউন। টুইটারে অ্যাশে সেই ছবি পোস্টও করেন অভিষেক বচ্চন।

আপাতত অ্যাশকে ঘিরেই মজেছে কান ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল।

Advertisement ---
---
-----