হোমগার্ডের পদ ফিরিয়ে দিয়ে ইস্তফা অলোক বর্মার

নয়াদিল্লি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের অধীন হোমগার্ড, দমকল ও অসামরিক প্রতিরক্ষা বিভাগের শীর্ষকর্তার পদ ফিরিয়ে চাকরি থেকে ইস্তফা দিলেন অলোক বর্মা৷ সিবিআই অধিকর্তা হিসাবে প্রত্যাবর্তনের পর বৃহস্পতিবার তাঁকে সেই পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়৷ তারপরই এই ইস্তফা৷

প্রসঙ্গত, ৩১ জানুয়ারি অবসর নেওয়ার কথা ছিল অলোক বর্মার৷ তার ২০দিন আগে চাকরি থেকে ইস্তফা দিলেন তিনি৷ ইস্তফা দেওয়ার আগে মুখ খোলেন অলোক বর্মা৷ সংবাদসংস্থা পিটিআই জানান, মিথ্যা অভিযোগে তাঁকে সরানো হয়েছে৷ তাঁকে সরানোর মধ্যে দিয়ে সংস্থার স্বাধীকার নিয়ে প্রশ্ন উঠে গিয়েছে বলে দাবি করেন সদ্য ক্ষমতাচ্যুত সিবিআই অধিকর্তা অলোক বর্মা৷

সিবিআইয়ের প্রাক্তন ডিরেক্টর জানান, দেশের বড়বড় দুর্নীতির তদন্ত করে থাকে সিবিআই৷ ফলে এই সংস্থার স্বাধীনতা থাকা উচিত। আমি সংস্থার সার্বভৌমত্ব ও স্বাধীনতা বজায় রাখতে চেয়েছিলাম৷ সেটাই বজায় রাখতে চেয়েছিলাম। অভিযোগকারীর একার মিথ্যে বয়ানেই আমাকে সরিয়ে দেওয়া হল৷

অলোক বর্মার এই মন্তব্যকে ভালো ভাবে নেননি প্রাক্তন অ্যার্টনি জেনারেল মুকুল রোহতগি৷ বলেন, সিভিসি রিপোর্ট দেখেই প্রধানমন্ত্রী ও সুপ্রিম কোর্টের বর্ষীয়ান বিচারপতি এ কে সিক্রি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ তাই এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করা উচিত হয়নি বর্মার৷ এতে সিবিআইয়ের নাম ও মর্যাদা ক্ষুন্ন হয়েছে৷

অপরদিকে অলোক বর্মার জায়গায় পুর্নবহাল করা হয়েছে নাগেশ্বর রাওকে৷ ১৯৮৬ সালের ওড়িশা ক্যাডারের এই আইপিএস অফিসার সিবিআই অধিকর্তার দায়িত্ব নিয়েই অলোক বর্মার নেওয়া সব ট্রান্সফার অর্ডার বাতিল করে দেন৷ এদিকে সিবিআই অধিকর্তা হিসাবে নাগেশ্বর রাওয়ের নিয়োগকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টে মামলা করেছেন বিশিষ্ট আইনজীবী প্রশান্ত ভূষণ৷

----