গোলাপি বাদাম ফুলে নীল আকাশ মিশেছে শ্রীনগরের জন্নত বাদামওয়াড়িতে

জাহিদ ওয়াফাই, শ্রীনগর: কাশ্মীর বেড়াতে যাবেন আর বাদামওয়াড়িতে যাবেননা পর্যটকরা তা কি হয়? প্রকৃতির এমন বাঁধন কোথায় আছে? হালকা গোলাপি বাদাম ফুল তাতে বসা ভ্রমর আর প্রেক্ষাপটে নীল আকাশ৷

চোখ জুড়িয়ে যাওয়ার মত দৃশ্য৷ বাদামওয়াড়ি বাগান৷ কোহ-এ- মারান পাহাড়ের উপর সারি সারি বাদাম গাছ৷ কবে কে তৈরি করেছিলে এই সুন্দর বাগান তার ইতিহাস সেই অর্থে না পাওয়া গেলেও ইতিহাসের খোঁজে নয় এখানে পর্যটকরা ভিড় জমান সৌন্দর্যের খোঁজে৷

এখানে বেড়াতে আসা এক পর্যটক জানালেন, “আমরা বাদামওয়াড়ি নাম শুনেছিলাম৷ এখানে এসে দেখলাম কতটা সুন্দর জায়গাটা৷ বাদাম গাছে ভরা৷ তাতে ফুল ফুটে রয়েছে৷ আর কয়েকদিন পরে এলে বাদাম কিভাবে ফলে থাকে তাও দেখা যাবে৷ এসব আমরা জীবনে এই প্রথম দেখছি৷ আমরা একটু আগে এসে গেছি৷ আর কয়েকদিন পরে আসলে আরও সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারতাম৷” আরেক পর্যটক এসেছেন সুদূর মুম্বই থেকে৷’’

- Advertisement -

তিনি আরও জানালেন, “আমাদের হোটেল ডাল লেকের ওই পারে৷ আমরা এপারে এসেছি বাদামের ফুল দেখতে৷ এত অসাধারণ রঙের ফুল মুম্বইতে কোথায়? আমরা সোনমার্গ গুলমার্গ পহেলগাঁও গিয়েছিলাম আর এখন শ্রীনগরের ডাল লেক আর এই বাদামওয়াড়ি দেখার জন্য শ্রীনগরে এসেছি৷ পহেলগাঁও সবুজে ভরা৷ গুলমার্গে বরফ পরা দেখেছি পহেলগাঁও গুলমার্গের স্যন্দর্য একেবারেই আলাদা৷ আর শ্রীনগরের এই বাদামওয়াড়ির একেবারেই নিজস্ব একটা আলাদা সৌন্দর্য রয়েছে৷”

মনে করা হয় এখানের মন্দির চতুর্দশ শতাব্দীতে সুলতান জৈন-উল-আবিদিনের রাজত্বকালেরও আগে তৈরি হয়৷ বসন্তের রোদ গায়ে মেখে এই সময় বাদামওয়াড়ি আরও মোহময়ি হয়ে ওঠে৷ গত কেয়েকবছর আগে এই বাগানের সৌন্দর্য নষ্ট হয়ে যেতে বসেছিল৷ সেই হারানো সৌন্দর্যকে আবার ফিরে পেয়েছে এই বাগান৷ কর্পোরেট সোশাল রেসপনসিবিলিটি হেরিটেজ ট্রাস্টের উদ্যোগে বাদামওয়াড়ি আক্ষরিক অর্থেই হয়ে উঠেছে জন্নত৷

Advertisement ---
---
-----