‘যুদ্ধ জাহাজ পাঠিয়ে মারাত্মক উস্কানি দিয়েছে আমেরিকা’

বেজিং:  বিতর্কিত দক্ষিণ চিন সাগরে চিনের নিয়ন্ত্রিত দ্বীপপুঞ্জের কাছ দিয়ে একটি মার্কিন ডেস্ট্রয়ারের টহল দেওয়ার ঘটনাকে ‘মারাত্মক উস্কানি’ বলে অভিহিত করল বেজিং। চিনের দাবি, এই ধরনের সমারিক তৎপরতা চিনের ‘সার্বভৌমত্ব ও নিরাপত্তা’র প্রতি সরাসরি চ্যালেঞ্জ। চিনা বিদেশমন্ত্রক এক বিবৃতিতে বলেছে, মার্কিন ডেস্ট্রয়ার ইউএসএস মাস্টিন শুক্রবার বিতর্কিত জলসীমায় প্রবেশ করে। সেই সময় দু’টি চিনা যুদ্ধজাহাজ মার্কিন ডেস্ট্রয়ারকে সতর্ক করে দেয়।

তবে এই ঘটনা ঠিক কোন জলসীমায় ঘটেছে চিন তা জানায়নি। তবে চিনের সংবাদমাধ্যমে বলা হয়েছে, স্পার্টলি দ্বীপপুঞ্চের মিসচিফ রিফের ১২ নটিক্যাল মাইলের মধ্যদিয়ে মার্কিন ডেস্ট্রয়ার চলে গেছে। স্পার্টলি দ্বীপপুঞ্জকে চিনে নানশা নামে অভিহিত করা হয়। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, দক্ষিণ চিন সাগরের এই দ্বীপপুঞ্জ ও এর আশপাশের জলসীমার ওপর বেজিংয়ের সন্দেহাতীত সার্বভৌমত্ব রয়েছে।

বিবৃতিতে আরো বলা হয়, বেজিংয়ের অনুমতি না নিয়ে ওই এলাকায় যুদ্ধজাহাজ পাঠিয়ে আমেরিকা চিনের সার্বভৌমত্ব ও নিরাপত্তার ক্ষতি করেছে, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক আইন লঙ্ঘন করেছে এবং সার্বিকভাবে আঞ্চলিক শান্তি ও স্থিতিশীলতাকে বিপন্ন করেছে। চিন ও আমেরিকার মধ্যে যখন টানটান কূটনৈতিক উত্তেজনা বিরাজ করছে এবং দেশ দু’টি বাণিজ্য যুদ্ধের প্রাপ্তসীমায় পৌঁছে গেছে বলে মনে করা হচ্ছে তখন এই হুঁশিয়ারি দিল বেজিং। খনিজ সমৃদ্ধ দক্ষিণ চিন সাগরে চিনের সঙ্গে ভিয়েতনাম, তাইওয়ান, ফিলিপাইন, মালয়েশিয়া এবং ব্রুনাইয়ের সীমানা বিরোধ চলছে। এই বিরোধে চন বিরোধী দেশগুলোর পক্ষ নিয়েছে আমেরিকা। তাতে আরও ক্ষুব্ধ বেজিং!

Advertisement ---
-----