মানুষের রায় বিজেপির পক্ষে ছিল, সরকার গড়া নিয়ে সাফাই অমিতের

নয়াদিল্লি: তীরে এসে ডুবেছে তরী৷ কর্ণাটকে বিজেপি সরকার গঠন করলেও তার স্থায়িত্ব ছিল মাত্র আড়াই দিন৷ কংগ্রেস সহ বিরোধীদের অভিযোগ,সরকার গড়ার মতো অবস্থাতেই ছিল না তারা৷ তাসত্ত্বেও গা জোয়ারি করে কর্ণাটক দখল করে বিজেপি৷ ইয়েদুরাপ্পার সরকার গড়ার পিছনে রাজ্যপাল বাজুভাই বালার ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন তারা৷ এরপরই বিরোধীদের মুখ বন্ধ করতে আসরে নামেন মোদীর প্রধান সেনাপতি অমিত শাহ৷ ফুৎকারে বিরোধীদের সব অভিযোগ উড়িয়ে দেন তিনি৷

বিজেপির বিরুদ্ধে ঘুষের যে ভিডিও কংগ্রেস সামনে এনেছিল তাকে ভুয়ো বলেছেন দলেরই এক বিধায়ক৷ তার কিছুক্ষণ বাদেই সোমবার রাজধানী দিল্লিতে এদিন সাংবাদিক বৈঠকের ডাক দেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ৷ কর্ণাটক নিয়ে মুখ খোলেন তিনি৷ নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠ দল না হয়েও কেন বিজেপি সেখানে সরকার গড়ল তারও ব্যাখ্যা দেন৷ জানান, দক্ষিণী রাজ্যে বিজেপি সরকার না গড়লে তা মানুষের রায়ের বিপক্ষে যেত৷ অমিত শাহ বলেন,‘‘কর্ণাটকে মানুষ কংগ্রেসের বিপক্ষে রায় দিয়েছে৷ এটা নিয়ে কোনও দ্বিধা নেই৷ এবার আমরা যদি সরকার গড়ার দাবি না জানাতাম তাহলে তা মানুষের রায়কে অসম্মান করা হত৷’’

কর্ণাটকে বিজেপি সরকার গড়তেই উঠে আসে গোয়া ও মণিপুর প্রসঙ্গ৷ বিজেপি এই দুই রাজ্যে সংখ্যাগরিষ্ঠ দল না হওয়া সত্ত্বেও আঞ্চলিক দলগুলিকে সঙ্গে নিয়ে সরকার গঠন করে নেয়৷ এই নিয়ে প্রচুর জলঘোলা হয়৷ এদিন অমিত শাহ সেই প্রসঙ্গে জানান, গোয়া ও মণিপুর নিয়ে কংগ্রেস যা বলছে তা ঠিক নয়৷ মোদীর সেনাপতি বলেন,‘‘মণিপুরের কথা বলা হচ্ছে৷ ওখানে আমরা সবার প্রথমে সরকার গড়ার দাবি জানিয়েছিলাম৷ আর কংগ্রেস শুধু সময় নষ্ট করে গিয়েছে৷ গোয়াতে কংগ্রেস প্রথমে সরকার গড়ার দাবি জানায়নি৷ আমরা দ্বিতীয় দল হওয়া সত্ত্বেও প্রথম সরকার গঠনের দাবি জানিয়েছিলাম৷’’

সাংবাদিক সম্মেলনে অমিত শাহ কংগ্রেসের বিরুদ্ধে গুচ্ছ প্রশ্ন তুলে দেন৷ জানান, সিদ্দারমাইয়া জমানার একাধিক কংগ্রেস মন্ত্রী ভোটে হেরেছে৷ তারপরে শুধু কংগ্রেস ও তাদের সহযোগী দল জেডি(এস) জয় নিয়ে মাতামাতি করছে৷ কণাটকের মানুষ নয়৷ বলেন, ‘‘কংগ্রেস ১২২ থেকে ৭৮ এ নেমে এসেছে৷ তাদের একাধিক মন্ত্রী হেরে গিয়েছে৷ মুখ্যমন্ত্রী দুটির মধ্যে একটি কেন্দ্রে হেরেছে৷ তারপরেও ওরা এই জয় নিয়ে উল্লাস করছে৷’’ এখানে তিনি আরও একবার কংগ্রেসের অস্তিত্বের কথা মনে করিয়ে খোঁচা মেরে বলেন, ‘‘কংগ্রেস তো পিপিপি সরকারে পরিণত হয়েছে৷ পাঞ্জাব, পুদুচেরি ও পরিবার কংগ্রেস৷’’ এর আগে কণাটকে প্রচারে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী কংগ্রেসকে পিপিপি দল বলে সমালোচনায় বিদ্ধ করেছিলেন৷

----
-----