এই মুহূর্তে ৫০০০০ সৈন্যের অভাব রয়েছে ভারতীয় বাহিনীতে, জানাল কেন্দ্র

নয়াদিল্লি: অস্ত্রের অভাবের পর এবার সামনে এল সেনাবাহিনীতে জওয়ানের অভাব। অন্তত ৫০,০০০ সেনা প্রয়োজন বলে জানা গিয়েছে। শুক্রবার এই তথ্য জানানো হয়েছে লোকসভায়।

এদিন লিখিত উত্তরে একথা জানিয়েছেন, প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের রাষ্ট্রমন্ত্রী সুভাষ ভামরে। তিনি জানিয়েছেন, এই মুহূর্তে ভারতীয় সেনার জেসিও পদে অন্তত ২৫,৪৭২জনকে প্রয়োজন। এছাড়াও অন্যান্য র‍্যাংকেও জওয়ান প্রয়োজন। বর্তমানে সেনাবাহিনীতে ১.৪ মিলিয়ন জওয়ান রয়েছে।

আরও পড়ুন: অস্ত্রের অভাবে ১০দিনের বেশি যুদ্ধ চালানো সম্ভব নয় ভারতের: ক্যাগ

- Advertisement -

আরও জানানো হয়েছে যে, ভারতীয় বায়ুসেনায় প্রয়োজন ১৩,৩৭৩ জওয়ান আর নৌবাহিনীতে প্রয়োজন ১৩,৭৮৫ জন। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী আরও জানিয়েছেন যে অভাব মেটাতে কেন্দ্রের তরফে অনেক উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। ট্রেনিং-এর সুযোগ বাড়ানো হচ্ছে। স্কুল-কলেজে সেনার আদর্শ বোঝানো হচ্ছে, বিভিন্ন প্রদর্শণী মানুষকে উৎসাহিত করা হচ্ছে। যুব সম্প্রদায়ের মধ্যে সেনাবাহিনীর এই প্রয়োজন বোঝাতে নানা ধরনের প্রচারও করছে সরকার।

আরও পড়ুন: ১৩জুন ভারতীয় পাইলটদের পাক-যুদ্ধের জন্য তৈরি থাকতে বলা হয়েছিল!

উল্লেখ্য, কিছুদিন আগেই ক্যাগের রিপোর্টে জানানো হয়, ভারতের কাছে এই মুহূর্তে যা অস্ত্র রয়েছে তা খুবই সীমিত৷ সীমান্তে যুদ্ধ বাঁধলে অস্ত্রের ঘাটতির জেরে ১০ দিনের বেশি যুদ্ধ চালিয়ে যাওয়া সম্ভব হবে না। মোট অস্ত্রশস্ত্রের পরিমাণের মাত্র ২০শতাংশ অস্ত্র দেশে মজুত রয়েছে বলে জানানো হয়েছে রিপোর্টে৷ একইসঙ্গে ওই রিপোর্টে বলা হয়েছে, মাত্র ২০দিনের ওয়ার ওয়েস্টেজ রিজার্ভ করা রয়েছে৷ যেখানে ৪০দিনের ওয়ার ওয়েস্টেজ রিজার্ভ করা অত্যাবশ্যক৷

আরও পড়ুন: ‘ভারত-চিন যুদ্ধ বাঁধলে ভারতীয় সেনাকে সবরকম সাহায্য করবে আমেরিকা’

চিন ও পাকিস্তান ক্রমাগত যুদ্ধের হুমকি দিচ্ছে ভারতকে৷ পাকিস্তানও প্রায় প্রতিদিনই সংঘর্ষ বিরতি চুক্তি লঙ্ঘন করে ভারতীয় সেনা এবং সেনা ছাউনি লক্ষ্য করে হামলা চালায়৷ যেকোনও মুহূর্তে যুদ্ধের পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে পারে জেনেও কেন অস্ত্রশস্ত্র সঠিক পরিমাণে মজুত করা হয়নি সেই নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়েছে ক্যাগ রিপোর্টে৷

Advertisement ---
---
-----