‘রাওয়াত শিক্ষাবিদ নন যে তিনি পড়াশুনার বিষয়ে উপদেশ দেবেন’

শ্রীনগর: ‘উপত্যকার স্কুলে পড়ুয়াদের কি শিক্ষা দেওয়া হয়৷ সেই নিয়ে ভারতের সেনাপ্রধানের না ভাবলেও চলবে৷’ শনিবার এহেন কড়া ভাষাতেই বিপিন রাওয়াতের উপরে ক্ষোভ উগড়ে দিল জম্মু-কাশ্মীর সরকার৷

কাশ্মীরের স্কুলে ভিন্ন মানচিত্র দেখায় শিক্ষকেরা৷ শুধু দেশের নয়৷ দেশের পাশাপাশি জম্মু-কাশ্মীরের মানচিত্র আলাদাভাবে দেখানো হয় এই স্কুলগুলিতে৷ কেন এহেন মানচিত্রে বিভেদ? সেই নিয়েই মন্তব্য করেই বিতর্কের সৃষ্টি করেছিলেন বিপিন রাওয়াত৷ এই মন্তব্যের পরই জম্মু-কাশ্মীর সরকার কড়া ভাষায় সেনাপ্রধানকে সতর্ক করে তাঁকে কটাক্ষ করলেন ‘ওয়েল ডেকরেটেড অফিসার’ নামে৷

এই ঘটনার প্রসঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী আলতাফ ভুখারি বলেন, সেনাপ্রধান দেশের সম্মানীয় ব্যক্তি৷ তাঁর কাজ নিয়ে কোনও দ্বিধা কিংবা সংশয় প্রকাশের জায়গা নেই৷ কিন্তু তিনি শিক্ষাবিদ নন৷ তাই কোন স্কুলে কি পড়ানো হবে সেটি তিনি স্থির করার কেউ নন বলে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন ভুখারি৷

তবে, রাজ্যের কেন আলাদা মানচিত্র দেখানো হয়? এই প্রসঙ্গে যুক্তিও খাঁড়া করেছেন ভুখারি৷ তিনি বলেন, প্রতিটি রাজ্যেরই আলাদা মানচিত্র রয়েছে৷ দেশের প্রতিটি রাজ্যেই প্রতিটি স্কুলেই সেই মানচিত্র পড়াশুনার কাজে ব্যবহার করা হয়৷ পাশাপাশি তিনি এও বলেন, যারা শিক্ষা ব্যবস্থার সঙ্গে যুক্ত নয়৷ তাদের উপদেশ কোনওভাবেই গ্রহণযোগ্য হতে পারে না৷ যার যা কাজ সেই কাজটিই তাঁর করা উচিত বলে কড়া ভাষায রীতিমতো হুমকি দিলেন এদিন ভুখারি৷

শুক্রবার বিকেলে সাংবাদিকদের দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে বিপিন রাওয়াত বলেন, ‘জম্মু-কাশ্মীরের স্কুলগুলিতে যে সমস্ত বিষয় প্রয়োজন নেই৷ সেই সমস্ত বিষয়েও পড়ুয়াদের শিক্ষিত করে তোলা হয়৷’ একইসঙ্গে তিনি বলেন, জম্মু-কাশ্মীরের স্কুল গুলিতে শিক্ষক শিক্ষিকারা দু’ধরণের মানচিত্রই দেখান পড়ুয়াদের৷ একটি ভারতের৷ অপর মানচিত্রটি জম্মু-কাশ্মীরের৷ কিন্তু কেন এই ধরণের মানচিত্রের বিভেদ? এই নিয়েই প্রশ্ন তুলেছিলেন তিনি৷

----
-----