নয়াদিল্লি: পাকিস্তান ক্রমাগত ভারতের সঙ্গে ছায়াযুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছে। এই নিয়ে ফের একবার হুঁশিয়ারি দিলেন সেনাপ্রধান বিপিন রাওয়াত। শুক্রবার দিল্লিতে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিই বলেন, ‘যেহেতু আমাদের দেশের সীমান্ত সবসময়ই চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি, তাই আমাদের সবসময় সন্ত্রাস, ছায়াযুদ্ধ নিয়ে সতর্ক থাকতে হয়।’ তবে সেনাবাহিনীর কড়া পাহারায় সীমান্তকে সুরক্ষিত রাখা সম্ভব হয় বলেও জানিয়েছেন তিনি।

আরও পড়ুন: জওয়ানের ভাইরাল ভিডিওর তদন্তের নির্দেশ রাজনাথের

সম্প্রতি, খাবারের মান নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় নালিশ জানিয়েছেন এক বিএসএফ জওয়ান। সেই প্রসঙ্গেও এদিন প্রশ্ন করা হয় রাওয়াতকে। তিনি বলেন, সব সেনা হেডকোয়ার্টারে লাগানো হচ্ছে কমপ্লেন বক্স। সেখানে সেনা জওয়ানেরা মতামত জানাতে পারবেন। তা সত্ত্বেও যদি কারও কোনও অভিযোগ থাকে তাহলে তাঁরা সরাসরি তাঁর কাছেও অভিযোগ জানাতে পারবেন বলে উল্লেখ করেছেন সেনাপ্রধান। সোশ্যাল মিডিয়ায় অভিযোগ না জানানোর জন্য আবেদন করেন তিনি। কমপ্লেন বক্সে কোনও অভিযোগ জানালে অভিযোগকারী জওয়ানের নাম গোপন রেখে তদন্ত করা হবে বলেও আশ্বাস দিয়েছেন তিনি। অভিযোগ জানালে তা সরাসরি সেনাপ্রধানের অফিসে পৌঁছে যাবে বলেও জানানো হয়েছে।

আরও পড়ুন: বিএসএফের মুখোশ খুলে দিতেই তেজ বাহাদুরের বন্দুক কেড়ে নিল সেনাবাহিনী

সম্প্রতি, একটি ভিডিও ছড়িয়ে ওড়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় যেখানে তেজ বাহাদুর নামে এক বিএসএফ জওয়ান দাবি করেন, যে বিএফএফ ক্যাম্পে দেওয়া হয় জলের মত পাতলা ডাল আর পোড়া রুটি। সেই ছবিও পোস্ট করেন ওই ভিডিওতে। এরপরেই এই ঘটনা নিয়ে সোরগোল পড়ে যায়। তদন্তের নির্দেশ দেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং। বিএসএফের তরফ থেকে বলা হয়, ওই জওয়ান মদ্যপ ছিলেন। এমনকি এর আগেও ওই জওয়ানের বিরুদ্ধে নিয়ম ভাঙার অভিযোগ ছিল বলেও জানানো হয়।

অন্যদিকে, টাইমস অফ ইন্ডিয়ায় প্রকাশিত এক রিপোর্টে জানা গিয়েছে, শ্রীনগর এয়ারপোর্টের কাছে বিএসএফ ক্যাম্পের কাছে দোকানদাররা জানিয়েছেন, তাঁর অফিসারদের কাছ থেকে কেনা হয় পেট্রল, ডিজেল, এমনকি খাবার জিনিসও। জানা গিয়েছে, ডাল, সবজী , চাল, মশলা বিক্রি করে দেওয়া হয় সস্তায়। এমনকি নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসও বিক্রি করে দেওয়া হয়।

--
----
--