মেজর গগৈর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ সেনার

নয়াদিল্লি : বিতর্কিত সেনা অফিসার মেজর লিতুল গগৈর বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ দিল ভারতীয় সেনা৷ কর্মরত অবস্থা এই মেজরকে এক মহিলার সঙ্গে শ্রীনগরের এক হোটেলে দেখা গিয়েছিল৷ এই ঘটনায় বিপাকে পড়েন মেজর গগৈ৷ সোমবার তাঁর বিরুদ্ধে কোর্ট অফ এনকোয়ারির নির্দেশ জারি করে ভারতীয় সেনা।

নিজের শ্রীনগর সফরের সময় মেজর গগৈয়ের আচরণ ও পদক্ষেপ নিয়ে কড়া ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছিলেন সেনাপ্রধান বিপিন রাওয়াত৷ তিনি বলেছিলেন, সেনাবাহিনীর কোনও কর্মী যদি কোনও গাফিলতি করে এবং তা যদি প্রমাণিত হয়, তবে দ্রুত সেই অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করবে সেনা৷ সেই শাস্তি যাতে নজির হিসেবে ব্যবহার করা যায়, তেমনই পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছিল৷ লিতুল গগৈয়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ, চলতি বছরের মে মাসের ২৩ তারিখ স্থানীয় কাশ্মীরী মহিলাকে নিয়ে শ্রীনগরের একটি হোটেলে যান।

পড়ুন:আরএসএসের অনুষ্ঠানে এবার আমন্ত্রিত রাহুল গান্ধী!

- Advertisement -

সংবাদ সংস্থা পিটিআই সূত্রে খবর, তাঁর নামে ওই হোটেলের একটি ঘর অনলাইনে আগেই বুক করে রাখা হয়েছিল। তাঁর গাড়ির চালক ও ওই মহিলার সঙ্গে হোটেলে ঢুকতে গেলেই বচসা বাধে হোটেলের কর্মচারীদের সঙ্গে৷ কারণ, ওই মহিলা স্থানীয় বাসিন্দা হওয়ায় হোটেল কর্তৃপক্ষ তাদের হোটেলের ঘরে যেতে অনুমতি দেয়নি। এই ঘটনা থেকেই চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে৷

কোর্ট অফ এনকোয়ারিতে বলা হয়েছে, নিজের নিজের কর্মস্থল বা অপারেশনাল এরিয়ায় কর্তব্যরত অবস্থায় থাকার সময় মেজর লিতুল গগৈ অনুমতি না নিয়েই বাইরে গিয়েছিলেন৷ স্থানীয় এক মহিলার সঙ্গে দেখা গিয়েছে তাঁকে৷ সেনার আইন অনুসারে অপারেশনাল এলাকায় কর্মরত সেনাকর্মীরা নির্দিষ্ট ঘেরাটোপের বাইরে বেরোতে পারেন না।

গগৈ ঠিক এই অপরাধই করেন৷ এরআগে আরও একবার বিতর্কের কেন্দ্রে চলে এসেছিলেন মেজর গগৈ৷ গত বছর কাশ্মীরে যখন পাথর ছোঁড়ার ঘটনা ঘটছিল, ওই সময় পাথর থেকে বাঁচার জন্য এক স্থানীয় কাশ্মীরিকে নিজের জিপের সামনে বেঁধে নিয়ে জিপ চালিয়েছিলেন তিনি৷ এই ঘটনায় অবশ্য ভারতীয় সেনা তাঁর পাশেই দাঁড়ায়৷ তবে এবার আর শেষ রক্ষা হল না৷

Advertisement ---
---
-----