পুণে: পুলিশের কাছে খবর ছিল আগেই৷দীর্ঘদিন ধরেই পুণের হোটেল অরোরা টাওয়ারের রমরমিয়ে চলছে দেহব্যবসা৷হাতেনাতে সেক্স র‍্যাকেটের পর্দা উন্মোচন করতেই ছদ্মবেশে পুলিশ চলে যায় এই চারতারা হোটেলের ৩০১ নম্বর ঘরে৷অসমিয়া দালাল বিপুল দাহালের সঙ্গে ১৬০০০ টাকার রফা করেই পুলিশ ঢুকেছিল ঘরে৷আর সেখানেই শরীর মেলে অপেক্ষা করছিলেন আরশি খান৷

আরও পড়ুন- ভারতের সবচেয়ে ১০ দরিদ্র ক্রিকেটারের ঠিকানা

Advertisement

হ্যাঁ, ইনিই সেই মহিলা, ভারতে টি-২০ বিশ্বকাপ চলাকালীন যিনি পাক ক্রিকেটার শহিদ আফ্রিদিকে নিয়ে বোমা ফাটান৷আরশি বলেছিলেন যে, তাঁর গর্ভেই গোপনে বাড়ছে আফ্রিদি ও তাঁর সন্তান৷এরপর থেকেই আফ্রিদি-আরশির সম্পর্ক নিয়ে শুরু হয় বিস্তর জলঘোলা৷রাতারাতি জনপ্রিয় হয়ে গিয়েছিলেন আরশি৷তাঁর ‘লালা’ ওরফে আফ্রিদি ও ভারতীয় ফ্যানেদের জন্য তিনি ‘স্ট্রিপ’ করতেও পিছপা হননি৷ পুণের অপরাধ দমন শাখা এই সেক্স র‍্যাকেটের সঙ্গে যুক্ত মেয়েদের নিয়ে যায় অবজারভেশন হোমে৷কিন্তু সেখান থেকেই পালিয়ে যান আরশি৷

আরও পড়ুন  দেশের সেরা ১০ হট ক্রিকেটার পত্নী

----
--