অটো ভাড়া দিয়ে পরীক্ষার্থীদের বাড়ি ফেরালেন পুলিশ-কাকু

স্টাফ রিপোর্টার, বালুরঘাট: পরীক্ষা শেষে কত তাড়াতাড়ি বাড়ি ফেরা যায়। পাশাপাশি প্রয়োজনের তুলনায় বাসের সংখ্যা কম। এই দুইয়ের কারণে বাস ট্রেকার ও মিনিবাসের ছাদে চড়েই বাড়ি ফিরতে হচ্ছে পরীক্ষার্থীদের।

উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা দিয়ে বাড়ি ফেরার জন্য গাড়ির ছাদে অথবা পিছনের মইয়ে চড়ে বাড়ি ফেরার এই দৃশ্য দেখা যাচ্ছে দক্ষিণ দিনাজপুরের হরিরামপুরের বিভিন্ন রুটে।

আরও পড়ুন: মে মাসে পঞ্চায়েত ভোট চাইছে না বিরোধীরা

- Advertisement DFP -

জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পরীক্ষার্থীদের বাড়ি ফেরার অসহায় এই দৃশ্যে প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট দফতরের কর্মী আধিকারিকরা দেখেও না দেখার ভান করতে পারলেও এএসআই আসিরুল হক কিন্তু চুপ করে থাকতে পারলেন না। বৃহস্পতিবার পরীক্ষা শেষে গাড়িগুলির ছাদে পরীক্ষার্থী বহনের ব্যাপারটি দেখে তাঁদের নিচে নামিয়ে নিজেই উদ্যোগ নিয়ে অটোতে চাপিয়ে বাড়িতে পাঠালেন। সেই সঙ্গে অটোর ভাড়াও নিজের পকেট থেকেই মিটিয়ে দিলেন।

কোথাও প্রশ্নপত্র ফাঁস। কোথাও হাসপাতালের বিছানায় বসে পরীক্ষা দেওয়ার মতো ঘটনাগুলির ভিড়ে মানবিক এমনই দৃশ্য ধরা পড়ল হরিরামপুরের চৌপতি মোড়ে। ব্লকের বিভিন্ন গ্রাম থেকে পরীক্ষার্থীরা হরিরামপুরের পরীক্ষা কেন্দ্রগুলিতে পরীক্ষা দিতে আসে।

আরও পড়ুন: ভিন রাজ্যের মোবাইল পাচার চক্রকে গ্রেফতার করল পুলিশ

এব্যাপারে এএসআই আসিরুল হক জানিয়েছেন, বাসের সংখ্যা কম পরীক্ষার্থীরা ছাদে চড়েই যাতায়াত করছিল। যে কোনও সময় ঘটে যেতে পারে দুর্ঘটনা। গাড়ির সংখ্যা কম থাকায় পরীক্ষা শেষে অসহায় পরীক্ষার্থীরা বাধ্য হয়েই ছাদে চড়তে বাধ্য হচ্ছিল।

আইনের রক্ষক হিসেবে এই দৃশ্য দেখামাত্র ছাদ থেকে সকলকে নামিয়ে দেওয়ার পাশাপাশি গাড়ির চালক খালাসি ও কন্ডাক্টরদের সতর্কও করে দিয়েছেন। সেই সঙ্গের নিরাপদে বাড়ি পৌঁছে দিতে পরীক্ষার্থীদের জন্য অটো রিকশার ব্যবস্থাও করে দিয়েছেন। বাসের ছাদে ভ্রমণ যে আইন বিরুদ্ধ ও তাতে জীবনের ঝুঁকি রয়েছে। সেই ব্যাপারেও পরীক্ষার্থীদের সচেতন করে দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন: জুনের মধ্যে মোবাইল নেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা দাঁড়াবে প্রায় ৪৮ কোটিতে

Advertisement
----
-----