বইয়ের মাধ্যমে ড্রাগের মোকাবিলায় বৃদ্ধা

চণ্ডীগড়: পাঞ্জাবের অমৃতসরের বাসান্ত এভিনিউতে নিজের বাড়িতেই ৮৭ বছর বয়সেও এখনও ড্রাগ আসক্তদের সামাজিক পথে ফেড়ানোর জন্য লড়াই চালাচ্ছেন এই বৃদ্ধা৷ চার আগে পর্যন্ত তিনি আসক্তদের দেখতেন, বর্তমানে শরীর আর তাঁর সঙ্গ দেয়না৷ তাতে কী? এখনও হাতে-কলমেই ড্রাগ আসক্তদের জীবনের মূল স্রোতে ফেরাতে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি৷

তিনি ডাঃ সরোজ সানান৷ যখন পাঞ্জাবে প্রথম হেরোইনের রমকরমা বাড়ল তখন তাঁর বয়স ছিল ৬৬৷ সেই থেকে ‘রেড ক্রস সোসাইটির’ সাহায্য নিয়ে ২০১২ সাল পর্যন্ত পাঞ্জাবের বিভিন্ন অঞ্চলে ড্রাগ আসক্তদের কাউন্সিলিংয়ের কাজ করছেন তিনি৷ তিনি জানিয়েছেন এখনও পর্যন্ত প্রয় ৩ হাজার মানুষকে সমাজের মূল স্রোতে ফিরিয়ে দিতে পেরেছেন তিনি৷ কিন্তু কী করে পারলেন তিনি? শুনে নেওয়া যাক তাঁর নিজের মুখ থেকেই৷ ডাঃ সরোজ সানান জানিয়েছেন, এই সমস্ত নেশাগ্রস্থদের সর্বদা কড়া নজরে রাখতে হয়৷ কারণ এরা সকলেই পরিস্থিতির স্বীকার হয়৷ ফলে যদি একবার মনে করা হয় যে ড্রাগাসক্ত ব্যক্তিটি সুস্থ হয়ে গিয়েছে, তা ভুল হবে৷ কারণ পরবর্তী সময়ে তাঁর কোনও কাছের বন্ধু বা পরিবারের লোকই তাকে আবার ওই মারণ নেশায় আবদ্ধ করতে পারে৷ ফলে এই সমস্ত রোগীদের উপর দীর্ঘদিন ধরে নজর রাখতে হয় বলেই জানিয়েছেন ডাঃ সরোজ সানান৷

নিজের বইতে ডাক্তার সানান জানিয়েছেন যে, ড্রাগ আসক্ত ব্যক্তিদের আসক্তি মুক্ত করা খুব সহজ কাজ নয়৷ এই বই লেখার কারণ হিসেবে তিনি জানিয়েছেন যে, এখনকার যুব সমাজকে বর্তমান সামাজিক পরিস্থির আঁচ দিতেই তাঁর এই প্রয়াস৷ এছাড়া যদি এখনই এই ব্যাধিকে রোকা না যায় তবে তা বহু জেনারেশনকে ধ্বংস করে দিতে পারে বলেও জানিয়েছেন ডাঃ সরোজ সানান৷

Advertisement
----
-----