নয়াদিল্লি: স্বপ্নের ফর্মে খোয়াজা৷ বাঁ-হাতি এই ওপেনারের ব্যাট ভর করে ভারতের মাটিতে সিরিজ জয়ের স্বপ্ন দেখছে অস্ট্রেলিয়া৷ বুধবার ফিরোজ শাহ কোটলায় সিরিজ নির্ণায়ক ম্যাচে কোহলিদের সামনে ২৭৩ রানের লক্ষ্য রাখল অজিবাহিনী৷ রাঁচির পর মোহালিতে অল্পের জন্য সেঞ্চুরি আসেনি খোয়াজার ব্যাটে৷ কিন্তু দিল্লিতে দুরন্ত সেঞ্চুরি করে অজি ওপেনার দলকে পৌঁছে দেন লড়াকু স্কোরে৷

মোহালিতে অস্ট্রেলিয়াা যেখানে শেষ করেছিল, কোটলায় সেখান থেকে শুরু করল৷ ৩৫৮ তাড়া করে ম্যাচের ফলে এদিন বাড়তি আত্মবিশ্বাস নিয়ে শুরু করে অস্ট্রেলিয়া৷ টস জিতে প্রথম ব্যাটিং নেয় অস্টেরলিয়া৷ ওপেনিংয়ে ৭৬ রান যোগ করেন খোয়াজা-ফিঞ্চ জুটি৷ ১৫তম ওভারে অজি ক্যাপ্টেন ব্যক্তিগত ২৭ রানে প্যাভিলিয়নে ফিরলেও আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিকারী পিটার হ্যান্ডকম্বসকে নিয়ে দলের ভিত আরও মজবুত করেন খোয়াজা৷ কিন্তু ওয়ান ডে কেরিয়ারে দ্বিতীয় সেঞ্চুরিপূর্ণ করার পরই ভুবনেশ্বর কুমারের শিকার হন খোয়াজা৷

১০৬ বলে ১০টি বাউন্ডারি ও ২টি ওভার বাউন্ডারির সাহায্যে ১০০ রান করে প্যাভিলিয়নের রাস্তা ধরেন বাঁ-হাতি অজি ওপেনার৷ চলতি সিরিজে এটি দ্বিতীয় সেঞ্চুরি খোয়াজার৷ রাঁচিতে ১০৪ রানের পর মোহালিতে ৯১ রানের দুরন্ত ইনিংস খেলেছিলেন অজি ওপেনার৷ এদিন ঝকঝকে সেঞ্চুরি করে অজি ইনিংসের ভিত মজবুত করেন খোয়াজা৷ তবে বোলাররা ভারতকে ম্যাচে ফেরান৷ শেষ পর্যন্ত ৯ উইকেট ২৭২ রান তোলে অস্ট্রেলিয়া৷ ভুবনেশ্বর কুমার তিনটি এবং মহম্মদ শামি ও রবীন্দ্র জাদেজা দু’টি উইকেট নিয়েছেন৷

শুরুটা দারুণ হলেও ভারতীয় স্পিনারদের বিরুদ্ধে এদিন বিশেষ সুবিধা করতে পারেনি অজি মিডল-অর্ডার৷ মাত্র এক রানে গ্লেন ম্যাক্সওয়েলকে ফেরান রবীন্দ্র জাদেদা৷ শট কভারে ক্যাপ্টেন কোহলির হাতে ক্যাচ দিয়ে ড্রেসিংরুমে ফেরেন ম্যাক্সি৷ এর পর থেকে নিময়িত উইকেট হারাতে থাকে অস্ট্রেলিয়া৷ ব্যক্তিগত ৫২ রানে হ্যান্ডকম্বসকে প্যাভিলিয়নের রাস্তা দেখান শামি৷ তার পর আগের ম্যাচে ৪৩ বলে ৮৪ রানের ঝোড়ো ইনিংস খেলা অ্যাশলে টার্নারকে এদিন ব্যক্তিগত ২০ রানে ড্রেসিংরুমে ফেরান কুলদীপ যাদব৷ মার্কাস স্টওনিস ও অ্যালেক্স কারি বিশেষ সুবিধা করতে পারেননি৷

সিরিজ নির্ণায়ক ম্যাচে দুই দলই দু’টি করে পরিবর্তন করে৷ যুবেন্দ্র চাহালের পরিবর্তে অল-রাউন্ডার রবীন্দ্র জাদেজাকে দলে নেয় ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্ট। এছাড়া লোকেশ রাহুলের পরিবর্তে মহম্মদ শামিকে অতিরিক্ত পেসার হিসেবে দলে জায়গা দেয় ‘মেন ইন ব্লু’। অর্থাৎ নির্ণায়ক ম্যাচে পাঁচ বোলারে মাঠে নামে কোহলিব্রিগেড। আর অস্ট্রেলিয়া শন মার্শের বদলে মার্কাস স্টোওনিস এবং জেসন বেহনড্রফের বদলে স্পিনার নাথান লায়নকে দলে ফিরিয়েছে।