বাবুলের মুখে ‘রকের ভাষা’ শুনেছেন পার্থ

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: নাম না করে বাবুল সুপ্রিয় ও লকেট চট্টোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে তোপ দাগলেন তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়।

আসানসোলের উত্তপ্ত পরিস্থিতি প্রসঙ্গে প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে তৃণমূলের মহাসচিব বলেন, ‘‘একজন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী পুলিশ অফিসারকে ধাক্কা মারছেন। মুখে ‘রকের ভাষা’। বিজেপি নেতা-নেত্রীরা রাজ্যে এধরনের ‘কটূ কথার সংস্কৃতি’ই আমদানি করতে চাইছেন।’’

আরও পড়ুন: BREAKING: ৭.২ মাত্রার ভূমিকম্পে সুনামির আশঙ্কা

- Advertisement -

আসানসোলে গোষ্ঠী সংঘর্ষের ঘটনায় বৃহস্পতিবার আক্রান্তদের শিবিরে ঢুকতে গেলে মাঝরাস্তাতেই পুলিশ পথ আটকায় স্থানীয় সাংসদ বাবুল সুপ্রিয় ও বিজেপি নেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায়ের৷ এরপরই পুলিসের সঙ্গে ধস্তাধস্তিতে জড়িয়ে পড়েন বাবুল। পুলিসের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয় তাঁর। পুলিশের কাছ থেকে বাধা পেয়ে ফিরে যেতে বাধ্য হন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী৷ ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে তিনি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে ফোন করে বিষয়টি জানান।

এরপরই সাংবাদিক সম্মেলন করে বাবুল ও লকেটকে তীব্র আক্রমণ করেন তৃণমূলের মহাসচিব৷ তিনি বলেন, “এই পরিস্থিতিতে সবার ওখানে যাওয়ার কী দরকার পড়ল বুঝতে পারছি না৷ টিভিতে মুখ দেখানোর জন্য ইচ্ছাকৃতভাবে আসানসোলের শান্তি-শৃঙ্খলা নষ্টের চেষ্টা করা হচ্ছে৷ আমরা এসব কোনওভাবে বরদাস্ত করব না৷’’

আরও পড়ুন: বিধ্বংসী ঝড়ে বিপর্যস্ত বিদ্যুৎ পরিষেবা, ক্ষতিগ্রস্থ বাড়ি

এদিন দুর্গাপুর থেকে আসানসোল যাওয়ার পথে আটকানো হল বিজেপি নেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায়কে। যা নিয়ে পুলিশ ও বিজেপি কর্মীদের মধ্যে বচসা হয়। বচসার জেরে অসুস্থ হয়ে পড়েন লকেট। পরে পুলিশ পাহারায় দু’নম্বর জাতীয় সড়ক ধরে তাঁকে কলকাতায় পাঠিয়ে দেওয়া হয়। এদিন বাবুল সুপ্রিয় ও লকেট চট্টোপাধ্যায়, এই দুই বিজেপি নেতা-নেত্রীকে আক্রমণের পাশাপাশি বামেদেরও একহাত নেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়৷ তিনি বলেন, “ধর্ম নিয়ে যে রাজনীতি হচ্ছে তাতে বামেরা সেভাবে কোনও প্রতিবাদ করেনি৷’’

পাল্টা জবাবে বিধানসভায় সিপিএমের পরিষদীয় দলনেতা সুজন চক্রবর্তীর কড়া প্রতিক্রিয়া ‘‘পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের কাছে বামেদের জ্ঞান শোনার কোনও প্রয়োজন নেই৷ ওঁরা চো বিজেপির সঙ্গে জোট বেঁধে ছিল৷ ওদের মুখে এসব কথা মানায় না৷”

আরও পড়ুন: অ্যাডমিট কেলেঙ্কারিতে বিপাকে গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ

Advertisement ---
---
-----