পুরবোর্ডের বদল সত্ত্বেও জলের সমস্যা মেটেনি বালুরঘাটবাসীর

শংকর দাস, বালুরঘাট: নাগরিকদের জলের চাহিদা না মিটিয়েই ক্ষমতা থেকে বিদায় নিতে হল তৃণমূল পরিচালিত পুরবোর্ডকে। শাসকদল পরিচালিত বোর্ডের মেয়াদ পুর্ন হওয়ায় মঙ্গলবার বালুরঘাট পুরসভা পরিচালনার দায়িত্ব নিজেদের হাতে তুলে নিল প্রশাসন।

এদিন বালুরঘাট পুরভবনে গিয়ে সদর মহকুমা শাসক ইশা মুখোপাধ্যায় যাবতীয় দায়িত্ব বুঝে নিয়েছেন। তাঁর হাতে পুরসভার দায়িত্ব হস্তান্তর করলেন বিদায়ী বোর্ডের চেয়ারম্যান রাজেন শীল। নির্বাচনের মাধ্যমে পরবর্তী নির্বাচিত বোর্ড গঠিত না হওয়া পর্যন্ত মহকুমাশাসকই পুরসভার প্রশাসকের দায়িত্ব পালন করবেন।

দীর্ঘ কয়েক দশক ক্ষমতায় থাকার পর ২০১৩ সালে পুরসভা নির্বাচনে শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের কাছে পরাস্ত হতে হয়েছিল বাম শরিক আরএসপি’কে। চেয়ারপার্সন চয়নিকা লাহার নেতৃত্বে সেই সময় পুরসভার পরিচালনার দায়িত্ব নিয়েছিল তৃণমূল পরিচালিত বোর্ড।

অভিযোগ দীর্ঘ কয়েক দশক ধরে ক্ষমতায় থেকে পা ভারী হয়ে গিয়েছিল আরএসপি’র। বাম শরিক আরএসপি’র হাত থেকে দায়িত্ব কেড়ে নিয়ে শাসকদলের হাতে তা তুলে দিয়েছিল৷ শহরের উন্নয়ন নিয়ে নানান স্বপ্ন দেখেছিলেন নাগরিকরা। প্রথমাবস্থায় কিছুটা হলেও উন্নয়নের কাজ কর্ম ঠিকঠাকই চলছিল। বামেদের আমলে গৃহিত পানীয় জল সরবরাহ প্রকল্পের কাজ নতুনভাবে শুরু করা হয়।

২০১৫ সালের ২২ নভেম্বর পক্ষাঘাতগ্রস্ত হয়ে চয়নীকা লাহার আকস্মিক মৃত্যু হয়৷ তারপর চেয়াম্যানের পদে আসীন হন ভাইস চেয়ারম্যান রাজেন শীল। দীর্ঘ পাঁচ বছর অতিক্রান্ত হয়ে গেলেও বাড়ি বাড়ি জল পৌঁছে দেওয়ার কাজ আর সম্পন্ন হয়নি। প্রকল্পের ব্যয় বেড়ে গিয়ে কয়েকগুনে পৌঁচ্ছেছে। শুধু মাত্র পাইপ লাইনের কাজেই একই রাস্তা চার থেকে পাঁচবার খোঁড়াখুঁড়ির করা হয়।

আরও পড়ুন: জগদ্দলে গুলিবিদ্ধ যুবক, ব্যক্তিগত শত্রুতার জের বলে অনুমান

অচিরেই জল সরবরাহ শুরু হয়ে যাবে বলে পুরসভার তরফে একাধিকবার ঘোষনা করা হলেও কাজের কাজ কিছুই হয়নি। এমনকি মাস কয়েক আগে গঙ্গারামপুর স্টেডিয়ামে প্রশাসনিক সভায় উপস্থিত মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের হাত দিয়ে এই অসম্পূর্ন প্রকল্পের উদবোধনও করা হয়েছিল। কিন্তু তারপর আত্রেয়ী নদী দিয়ে অনেক স্রোত বয়ে গেলেও নাগরিকদের বাড়িতে আর পানীয় জল পৌঁছায়নি।

বিদায় বেলায় গত সোমবার বালুরঘাট বুড়িমাকালী মন্দিরে জলের কানেকশন দিয়ে জল সরবরাহ চালু হয়ে গেল বলে চেয়ারম্যান রাজেন শীল ঘোষনা করেছেন। কিন্তু তার পরেও কতদিনে বাড়িতে পানীয় জল পৌঁছাবে তা নিয়ে এখনও সন্দেহে রয়েছেন বালুরঘাটবাসী।

আরও পড়ুন: প্রথমে যজ্ঞ, তারপর বন্ধুকে খুন, অভিযোগ পরিবারের

এই বিষয়ে পুরসভার বিদায়ী চেয়ারম্যান রাজেন শীল জানিয়েছেন, প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন হয়ে গিয়েছে। এখন শুধু নাগরিকদের বাড়িতে জল পৌঁছে দেওয়ার অপেক্ষা। রাস্তার মেইন পাইপ লাইন থেকে বাড়িতে কানেকশন দেওয়ার কাজে ঠিকাদার পেতে দেরি হওয়ায় এতটা সময় লাগছে। ইতিমধ্যেই বাড়িতে জল পরিসেবা নেওয়ার বিষয়ে আগ্রহী নাগরিকদের কাছ থেকে আবেদনপত্র জমা নেওয়ার কাজও শুরু হয়ে গিয়েছে৷

পুরসভার ভারপ্রাপ্ত প্রশাসক ঈশা মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন, সরকারি নির্দেশিকা অনুযায়ী তিনি বালুরঘাট পুরসভার দায়িত্বভার গ্রহণ করলেন। পরবর্তী নির্দেশিকা জারি বা নির্বাচিত বোর্ড গঠিত না হওয়া পর্যন্ত তিনি এই দায়িত্ব পালন করবেন।

----
-----