ভারত বনধ: শহরের প্রযুক্তি তালুকে ১০টার মধ্যেই ঢুকলেন কর্মীরা

সোয়েতা ভট্টাচার্য, কলকাতা: বামেদের অভিযোগ মন থেকে তাদের ডাকা বনধকে সমর্থন করলেও রাজ্য সরকারের চোখ রাঙানির জেরে রাস্তায় বেরতে বাধ্য হচ্ছেন অনেকে৷ তবে kolkata 24X7-কে অন্য কথা জানাল শহরবাসী৷

বনধের ইস্যুকে সমর্থন করলেও কর্মনাশা দিনকে সমর্থন করিনা, বলেই জানাল কলকাতাবাসী৷ উত্তর থেকে দক্ষিণ, শহরের কোথাও বনধের ছবি দেখা যাচ্ছে না বলেই দাবি করলেন অনেকে৷ শহরের তথ্য প্রযুক্তি তালুকের ছবিও স্পষ্ট ইঙ্গিত দিল বনধকে কোনও ভাবেই সমর্থন করছেন না তথ্য প্রযুক্তির কর্মীরা৷

অন্যদিনের মত স্বাভাবিক ছবিই ধরা পড়ল এই চত্বরে৷ তথ্য প্রযুক্তি সংস্থার এক কর্তা জানান, “প্রতিদিনের মতো আজও উপস্থিতির হার একই৷ আমাদের অনেক কর্মীরা জেলা থেকেও অফিসে আসেন৷ তারা সকলেই আজও সময়ের মধ্যেই অফিসে এসে পৌঁছেছেন৷ উপস্থিতির হার দেখে স্পষ্ট বনধের প্রভাব আমাদের তালুকে পরেনি৷” এই তালিকের দোকানপাটও খোলা রয়েছে৷ জলখাবারের দোকানের এক কর্মী বলেন, ”আজ দোকানে বিক্রি ভালোই হয়েছে৷ বনধের কথা শুনে বিক্রি কতটা হবে সেই নিয়ে দুশ্চিন্তায় ছিলাম৷ এই দোকান একমাত্র আয়ের পথ৷ বনধ কে কোনও ভাবেই সমর্থন করিনা৷ দোকান না চললে খাব কি? আমাদের কথা বনধ সমর্থকেরা একবারও ভাবেননা৷”

- Advertisement -

অন্যদিনের মত এই এলাকাতে সব দোকানই খোলা ছিল৷ শুধু তাই নয় বিক্রির হারও ছিল অন্যদিনের মতই৷ হাওড়া থেকে সোমা বোস নামে এক তথ্য প্রযুক্তির কর্মী জানান, ”বনধের ইস্যু কে সম্পূর্ণ ভাবে সমর্থন করলেও কর্মনাশা দিন কে সমর্থন করিনা৷ রোজকারের মতো আজও ১০টার মধ্যেই অফিস পৌঁছে গেছি৷ রাস্তায় যানবাহন পেতেও কোনও সমস্যায় পরতে হয়নি৷ আমার মনে হয় কোনও সমস্যার সমাধান কর্মনাশা দিনের মাধ্যমে মিলতে পারেনা৷”

অন্যদিকে ২৪ বছর বয়সি তথ্য প্রযুক্তি কর্মী রাজেশ সিং জানান,”আগে বনধের নামেই মানুষ কে আতঙ্কিত হতে দেখেছি৷ তবে এখন পরিস্থিতি পাল্টেছে৷ আমাদের জেনারেশন বনধ কে সমর্থন করেনা৷ রাস্তার দিকে তাকালেই সেটা বোধা যাবে৷ এখন রাস্তায় বেরিয়ে ভয় পাওয়ার প্রশ্নই উঠেনা৷ আমার বাড়ি টালিগঞ্জে৷ সকাল 8টায় অফিসের উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বেরিয়েছি৷ রাস্তায় দেখলাম পুলিশের বিশাল বাহীনি তিলোত্তমা কে নিরাপত্তার চাদরে মুড়িয়ে রেখেছেন৷ যানবাহন পেতেও কোনও সমস্যা হয়নি”৷ পেট্রোল-ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধি, রাফায়েল দুর্নীতির মত গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে বাম-কংগ্রেসের ডাকা ভারত বনধে কলকাতার ব্যস্ততা সাধারণ দিনের মতো৷ খোলা রয়েছে দোকানপাট৷ চলছে বাস, অটো ছোট গাড়িও৷ অফিসযাত্রী এবং স্কুল যাওয়া ছাত্রছাত্রীদের দেখা গেল রাস্তায়৷ অন্যান্য দিনের থেকে তথ্য প্রযুক্তি তালুকের ছবিটা আলাদা নয় সপ্তাহের এই প্রথম দিনে৷

Advertisement ---
---
-----