মাধ্যমিকে সাঁওতালি মাধ্যমের পরীক্ষায় অভাবনীয় সাফল্য পেল বাঁকুড়া

বাঁকুড়া: মাধ্যমিক সাঁওতালী মাধ্যমের পরীক্ষায় অভাবনীয় সাফল্য পেলো বাঁকুড়ার শালতোড়ার চান্দড়া হাইস্কুলের ছাত্র অমরদীপ টুডু। তার প্রাপ্ত নম্বর ৫৬৫। কৃতি এই ছাত্রের বাড়ি হীড়বাঁধের তিলাবাইদ গ্রামে হলেও দীর্ঘদিন সে শালতোড়ার চান্দড়া হাই স্কুলে আবাসিক ছাত্র হিসেবে পড়াশুনা করেছে। ছাত্রের এই সাফল্যে খুশি শিক্ষক থেকে তার সহপাঠীরাও। উল্লেখ্য এই স্কুলের সাঁওতালী মাধ্যমে ৩০ জন মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীর সকলেই কৃতকার্য্য হয়েছে।

ছেলের এই সাফল্যে খুশি অমরদীপ টুডুর বাবা পেশায় দিনমজুর মনীন্দ্র টুডু। ছেলের জন্য গর্বিত মা মাইনো টুডু বলেন, খুব ভালো লাগছে। তবে তাদের ছেলে যেন সাঁওতালী মাধ্যমেই ভালো স্কুলে পড়াশুনা করার সুযোগ পায় তার আবেদন জানান। খেলাধূলাতে তেমন ঝোঁক না থাকলেও পড়াশুনার পাশাপাশি তার নিত্য নতুন আবিষ্কারের ঝোঁক আছে বলে তিনি জানান।

বুধবার মাধ্যমিকের প্রকাশের অব্যবহিত পর থেকেই জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া ফেসবুকে অমরদীপ টুডুকে ‘সাঁওতালী বিভাগে রাজ্যে প্রথম স্থানাধিকারী’ হিসেবে জোর প্রচার চলছে। এবিষয়ে জানতে বিদ্যালয় পরিদর্শক (মাধ্যমিক) পঙ্কজ সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি কলকাতা24×7 কে বলেন, এবিষয়ে তার কাছে কোন খবর নেই। তবে এটা নিশ্চিত চান্দড়া হাই স্কুলের অমরদীপ টুডু সাঁওতালী বিভাগে জেলার মধ্যে প্রথম। একই সঙ্গে তিনি অমরদীপ টুডুকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন।

- Advertisement -

গ্রামের ছেলের এই অভাবনীয় সাফল্যের খবর আসা মাত্র তিলাবাইদ গ্রাম উৎসবের চেহারা নয়। বৃহস্পতিবার ঐ গ্রামে একটি সংগঠনের উদ্যোগে কৃতি ছাত্র অমরদীপ টুডুকে সংবর্ধনা জানানো হয়। হীড়বাঁধ পঞ্চায়েত সমিতির ‘বিদায়ী’ সভাপতি মোনালী মহান্তী এই কৃতি ছাত্রকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। প্রয়োজনে তিনি অমরদীপ টুডুর পড়াশুনার ক্ষেত্রে সাহায্যের আশ্বাস দেন।

সাঁওতালী মাধ্যমের অন্যতম কৃতি মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী অমরদীপ টুডু ভবিষ্যতে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার হতে চায়। কিন্তু অর্থের অভাবে সেই স্বপ্ন পূরণ হবে কিনা সেই বিষয়টা এখন ভাবাচ্ছে তাকে। একই সঙ্গে তার এই সাফল্যে তার মা বাবার পাশাপাশি শিক্ষকদের ভূমিকাও কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করে।

Advertisement ---
---
-----