অবৈধ বালি পাচারে ফের শিরোনামে বাঁকুড়া

তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়া: ফের অবৈধ ভাবে বালি পাচারের ঘটনা বাঁকুড়ার রাইপুরের ফকির গ্রামে৷ শনিবার রাতে স্থানীয় কংসাবতী নদী থেকে রাতের অন্ধকারে বালি পাচারের সময় একটি ডাম্পার আটক করেন গ্রামবাসীরা। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছান সদ্য দায়িত্বপ্রাপ্ত রাইপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান জয়দেব দুলে।

গ্রামবাসীদের অভিযোগ, পুলিশ ও প্রশাসনের প্রত্যক্ষ মদতে দিনের পর দিন রাইপুর সংলগ্ন কংসাবতী নদী থেকে অবাধে বালি পাচার করা হচ্ছে। এই মুহূর্তে জেলার নদীগুলি থেকে প্রশাসনের নির্দেশে বালি তোলা বন্ধ রয়েছে। কিন্তু বিভিন্ন দফতরের আধিকারিকদের সাহায্যে এই এলাকা বালি মাফিয়াদের স্বর্গ রাজ্য হয়ে উঠেছে বলেও অভিযোগ।

আরও পড়ুন: সোনাজয়ী স্বপ্না বর্মনের মায়ের হার ছিনতাই কাণ্ডে তৎপর পুলিশ

- Advertisement -

শনিবার রাত থেকে গ্রামে বালি বোঝাই ডাম্পারটিকে আটক করা হলেও পুলিশ গ্রামে পৌঁছায়নি বলেও অভিযোগ। এদিকে গ্রামবাসীদের অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করেছেন উপপ্রধান জয়দেব দুলে। তিনি বলেন, ‘‘রাইপুর থানার পুলিশ আধিকারিক ও ভূমি সংস্কার দফতরের আধিকারিককে বারবার ফোন করা হলেও তাদের ফোন বন্ধ পাওয়া যায়৷ পাশাপাশি তিনিও এই বালি পাচারের সঙ্গে প্রশাসনের একাংশ জড়িত থাকার অভিযোগ করেছেন।

অন্যদিকে, গ্রামবাসী মহাদেব দুলে বলেন, ‘‘গত রাতে মোট তিনটি গাড়িতে বালি পাচার হচ্ছিল। দু’টি পালিয়ে গেলেও একটি ডাম্পার আমরা আটক করতে পেরেছি। পুলিশ এখন বিনা হেলমেটে বাইক আরোহীদের ধরতেই ব্যস্ত। চোখের সামনে দিনের পর দিন নদী থেকে বালি পাচার হয়ে গেলেও তাঁদের কোনও হুঁশ নেই৷’’ সঙ্গে পুলিশের প্রত্যক্ষ মদতে এই কাজ হচ্ছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘‘যে কাজ পুলিশ-প্রশাসনের করার কথা তা গ্রামবাসীদের করতে হচ্ছে। বর্তমান সময়ে এই ঘটনা চরম লজ্জার।’’

তবে আটক করা ডাম্পারের চালক নয়ন গরাই রাতে বালি পাচারের কথা স্বীকার করলেও পুলিশকে এই কাজে টাকা দেওয়ার কথা স্বীকার করেননি। সর্বশেষ পাওয়া খবরে গ্রামে পুলিশ না পৌঁছালেও ভূমি সংস্কার দফতরের আধিকারিক ইন্দ্রজিৎ দাস পৌঁছেছেন। তিনি পরিস্থিতি খতিয়ে দেখে বলেন, ‘‘পুলিশকে বিষয়টি জানানো হয়েছে। পুলিশের পক্ষ থেকে এখনও কেউ ঘটনাস্থলে পৌঁছাননি। ওঁনাদের সাহায্য ছাড়া এই বালি বোঝাই ডাম্পারটিকে বাজেয়াপ্ত করা সম্ভব হচ্ছে না।’’ একই সঙ্গে তাঁর দাবি, জেলার মধ্যে সবচেয়ে বেশি তাঁরাই বেআইনি বালি পাচার রুখতে অভিযান চালান।

আরও পড়ুন: ‘পাল্টা আন্দোলনে’ই আশার আলো দেখছে রাজ্য বিজেপি

তবে গ্রামবাসীদের অভিযোগ ‘প্রশাসনের একাংশ এই কাজে জড়িত’ এই কথা তিনি মানতে চাননি। যেখানেই যে ঘটনা ঘটুক না কেন রাইপুরের ভূমি সংস্কার দফতরের কেউ এই বালি পাচার মদত দেওয়ার ঘটনায় যুক্ত নয় বলেই তিনি এদিন দাবি করেছেন।

Advertisement ---
-----